ভোটের আগে আওয়ামী নেতা-কর্মীদেরকে হত্যার মিশন | এবার খুন হলেন ওয়ার্ড ছাত্রলীগ সভাপতি

0

সময় এখন ডেস্ক:

নির্বাচনের পূর্বে দেশজুড়ে বিভিন্ন স্থানে চলছে আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীদের টার্গেট করে হত্যাকান্ডের মিশন। মাত্র ক’দিন আগেই খুন হন শ্রীপুরের এক শ্রমিক লীগ নেতা। এরই ধারাবাহিকতায় খুন হলেন ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের ওয়ার্ড ছাত্রলীগ সভাপতি রাকিব। নির্বাচনের আগে দেশের বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী বিরোধী রাজনৈতিক সংগঠনগুলো নৃশংস কায়দায় সরকার দলীয় সংগঠনের নেতা কর্মীদের টার্গেট করে হত্যাযজ্ঞে মেতে উঠেছে বলে জানান এক সাবেক ছাত্রনেতা। তার ধারনা, এর সাথে বিএনপি এবং জামায়াত জড়িত।

এরই ধারাবাহিকতায় এবার বনানীর ১৯ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি রাকিব হাসান (২৮) অজ্ঞাতনামা সন্ত্রাসীদের ছুরিকাঘাতে নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন নূর ইসলাম নামের আরেকজন। বনানী থানার মহাখালী টিঅ্যান্ডটি কলোনি এলাকায় অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা তাদের এলোপাথাড়ি ছুরি দিয়ে আঘাত করে পালিয়ে যায়।

হামলার পর রাকিব ও নূরকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) দিবাগত রাত ১টায় রাকিবকে মৃত ঘোষণা করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। তার লাশ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, মহাখালী টিঅ্যান্ডটি কলোনি মসজিদের পেছনে রাবিকদের বাসা। পরিবারের সঙ্গে তিনি সেখানেই থাকতেন। তাদের গ্রামের বাড়ি বরিশালে।

পুলিশের বিবৃতি থেকে জানা যায়, বনানী থানার মহাখালী টিঅ্যান্ডটি কলোনি এলাকায় অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা রাকিব হাসান ও নূর ইসলামকে এলোপাথাড়ি ছুরি দিয়ে আঘাত করে। তাদের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে গিয়ে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১টায় কর্তব্যরত চিকিৎসক রাকিবকে মৃত ঘোষণা করেন।

খবর পেয়ে বনানী থানা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ছুটে যান। হাসপাতালে বনানী থানার পরিদর্শক (অপরেশন) সায়হান ওলিউল্লা জানান, হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদশর্ক মো. বাচ্চু মিয়া জানান, রাকিবের লাশ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। নূর ইসলামের চিকিৎসা চলছে।

শ্রীপুরে শ্রমিক লীগ নেতাকেও নৃশংসভাবে হত্যা করেছিল অজ্ঞাতনামা সন্ত্রাসীরা

গত ২৫ অক্টোবর গাজীপুরের শ্রীপুরে এক শ্রমিক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা করে অজ্ঞাতনামা সন্ত্রাসীরা। ওইদিন সকাল ১০টার দিকে পৌর এলাকার কড়ইতলায় এ ঘটনা ঘটে বলে শ্রীপুর থানার ওসি জাবিদুল ইসলাম নিশ্চিত করেছেন।

নিহত ওমর ফারুক (২৭) শ্রীপুর পৌর শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। তিনি কেওয়া পশ্চিম খণ্ড গ্রামের হাফিজুল ইসলামের ছেলে।

পুলিশ জানিয়েছে, সকাল ৯টার দিকে একদল লোক ফারুককে একটি গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়। পরে দুই হাত বিচ্ছিন্ন অবস্থায় তাকে কেওয়া পশ্চিম খণ্ড সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ফেলে যাওয়া হয়।

স্থানীয়রা ফারুককে উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় আল-হেরা হাসপাতালে এবং পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শেয়ার করুন !
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!