আকাশ থেকে পড়া উল্কাপিণ্ডে কোটিপতি যুবক!

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

ইন্দোনেশিয়ার উত্তরাঞ্চলের সুমাত্রা প্রদেশে নিজের বাড়িতে কফিন বানানোর কাজ করছিলেন ৩৩ বছর বয়সী জসুয়া হুতাগালুং। ওই সময় আকাশ থেকে একটি উল্কাপিণ্ড পড়ে তার বাড়ির চালে। উল্কার আঘা’তে টিনের চালের ওই অংশ ভেঙে যায়।

উল্কা পড়ে প্রাথমিকভাবে ক্ষ’তিগ্রস্থ হলেও পরে তিনি কোটিপতি হয়েছেন সেই উল্কার বদৌলতে। দরিদ্র থেকে তিনি ১০ কোটি টাকার মালিক হয়ে গেছেন।

আকাশ থেকে পড়া উল্কার টুকরোটি প্রায় ৪ বিলিয়ন বছর আগের। যার বাজারমূল্য ধরা হয়েছে ১০ কোটি টাকা। উল্কাপিণ্ডটি বিক্রি করে জোসুয়া পেয়েছেন ১০ কোটি টাকা। খুবই বিরল প্রজাতির উল্কা পড়েছিল তার ঘরে।

যার প্রতি গ্রামের দাম ধরা হয়েছে ৮৫৭ ডলার। জোসুয়া বলেছেন, প্রথম যখন এটি পড়ে তখন ব্যাপক গরম ছিল। পরে অবশ্য ঠাণ্ডা হয়ে গেছে। সূত্র: প্লেজ টাইমস।

প্রস্রাব দিয়ে বাড়ি বানানো হবে চাঁদে!

চাঁদে আবাস গড়া যাবে কিনা- এ নিয়ে মানুষ বিস্তর গবেষণা করেছে। তবে এখনো সফল হয়নি। সম্প্রতি এ সংক্রান্ত এক গবেষণায় অদ্ভুত তথ্য দিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। চাঁদে কংক্রিটের কিছু তৈরি করতে গেলে তাতে প্রয়োজন হবে মানুষের প্রস্রাব। এমনটাই জানিয়েছে ইউরোপীয় স্পেস এজেন্সি।

এজেন্সিটির গবেষণা অনুসারে, প্রস্রাবের মধ্যে পাওয়া প্রধান জৈব যৌগটি চূড়ান্ত আকারে শক্ত হওয়ার আগে চাঁদের কংক্রিটের মিশ্রণটিকে পোক্ত করবে। চাঁদের কংক্রিটের একটি জিওপলিমারের মিশ্রণ, যা কংক্রিটের অনুরূপ। গবেষণায় দেখা গেছে, এ মিশ্রণে ইউরিয়াযুক্ত পানির প্রয়োজন, যা অন্যান্য উপাদানের চেয়ে ভালো কাজ করবে।

একটি থ্রিডি প্রিন্টার ব্যবহার করে ইউরিয়া দিয়ে একটি মডেল তৈরি করা হয়েছে, যা শক্তিশালী প্রমাণিত হয়েছে এবং উন্নত কার্যক্ষমতাও বজায় রেখেছে। ইউরোপীয় স্পেস মিশ্রণের একটি গুণ হলো সহজেই মিশে যেতে পারে, যা দিয়ে ঢালাই করা সম্ভব এবং এটি নিজের চেয়ে ১০ গুণ ওজনের ভারী কিছু বহন করতে পারবে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

গবেষণার উদ্যোগী এবং সহ-লেখক মার্লিস আরনহফ জানিয়েছেন, চাঁদের বিশেষ ধরনের মাটির গুঁড়ো বা ধুলো রেগোলিথ সেখানে কংক্রিট তৈরির অন্যতম উপাদান হতে পারে। এটি চাঁদের পৃষ্ঠের সব জায়গায় পাওয়াও যায়। কাজেই পৃথিবী থেকে বিপুল পরিমাণে কংক্রিট নির্মাণের সামগ্রী পাঠানোর প্রয়োজন হবে না। অন্যদিকে ইউরিয়া সুপার প্লাস্টিকাইজার হিসেবে কাজ করার ফলে প্রয়োজনীয় পানিও কম লাগবে।

শেয়ার করুন !
  • 17
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply