সিঙ্গাপুরে রাজাকার সাকা চৌধুরীর ৮ হাজার কোটি টাকার সন্ধান মিলেছে

0

সময় এখন ডেস্ক:

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ফাঁ’সি হওয়া বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর ৮ হাজার কোটি টাকার সন্ধান পাওয়া গেছে সিঙ্গাপুুরে।

আজ বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) এ তথ্য নিশ্চিত করে জানিয়েছে দুদকের লিগ্যাল উইং শাখার একটি সূত্র।

দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান ওই বাংলাদেশির পরিচয় উল্লেখ না করে অর্থ পাচা’রের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, কয়েকটি সংস্থার যৌথ অনুসন্ধানে বিপুল এই অর্থের খোঁজ মিলেছে। অর্থ ফেরানোর চেষ্টা করছে সরকার।

খুরশিদ আলম খান এ সময় বলেন, আমি কোন রাজনৈতিক ব্যক্তির নাম উল্লেখ করতে চাচ্ছিনা। অবশ্যই সত্যতা আছে, আরও বেশি টাকা হয়তো আমরা আনতে পারবো। আইনি প্রক্রিয়াটি একটু জটিল। তবে আনা যায়, একটু সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। অর্থ পাচা’রের মামলা, লন্ডারিং মামলা প্রত্যেকটাই আমরা সমানভাবে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছি।

প্রসঙ্গত, সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ছিলেন। এছাড়া, চট্টগ্রাম-২, চট্টগ্রাম-৬, চট্টগ্রাম-৭ আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ছিলেন। ২০১৫ সালের ২২ নভেম্বরে ১৯৭১ সালে চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় গ- হ’ত্যা ও মানবতাবিরো’ধী অপরাধের সুস্পষ্টভাবে আদালতে প্রমাণ হওয়ার পর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রায় অনুযায়ী সাকা চৌধুরীকে ফাঁ’সি প্রদানের মাধ্যমে সাজা কার্যকর করা হয়।

উল্লেখ্য, ১৯৪৮ সালে সাকা চৌধুরীর পিতা ফজলুল কাদের (ফকা) চৌধুরীর গুদাম থেকে চট্টগ্রাম রেলওয়ের চুরি হওয়া ১১৫ মণ তামার তার উদ্ধার হলে বেঙ্গল ক্রিমিনাল ল’ অ্যামেন্ডমেন্ট অ্যাক্টে তাকে ১০০ টাকা জরি’মানা এবং অ’নাদায়ে ২ সপ্তাহের বিনাশ্র’ম জেল দেয়া হয়।

ফকা চৌধুরী নিজের রাজনৈতিক পরিচয় দেখিয়ে হাইকোর্টের মাধ্যমে সাজা মওকুফ করানোর চেষ্টা করলে বিচারপতি তার আবেদন মঞ্জুর না করে বরং তার সাজা আরও বাড়িয়ে জরি’মানার পরিবর্তে ৩ মাস বিনাশ্র’ম সাজা দেন। তথ্য পত্রে এই মামলাটি ফজলুল কাদের চৌধুরী বনাম ক্রাউন নামে লিখিত আছে (ঢাকা ল’ রিপোর্ট ১৯৫০)।

সেই কু-খ্যাত আসামির পুত্র সাকা চৌধুরী বাংলাদেশের মহান মুক্তিযু’দ্ধের সময় চট্টগ্রাম অঞ্চলে ত্রা’সের রাজত্ব কায়েম করে হাজার হাজার মুক্তিকামী জনতা বিশেষ করে অমুসলিম সম্প্রদায়ের নিরীহ জনগণকে হ’ত্যা, ধ-, লু’টপাট, অগ্নিসংযোগ, পাকিস্থানিদের জন্য নারী সরবরাহ, নিজের বাসভবন গুডস হিলে ট’র্চার সেল তৈরী করে সেখানে নির্যা’তনসহ বহু অপরাধের হোতা।

ট্রাইব্যুনালে তার পক্ষে দাঁড়ান বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার খন্দকার মাহবুব হোসেন। সাকা চৌধুরীকে বাঁচানোর জন্য ৭১ সালে পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখার প্রমাণস্বরূপ একটি ভুয়া সনদ দাখিল করে বিচারক এস কে সিনহা কর্তৃক তি’রস্কৃত হন।

শেয়ার করুন !
  • 583
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply