‘আমার নাম দেবাশিস হলো কবে, রিপোর্ট করুন’

0

বিনোদন ডেস্ক:

এবার ভুয়া অ্যাকাউন্টের জেরে টালিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র। তার ছবি ও ভিডিও ব্যবহার করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বন্ধুত্বের আহ্বান করা হচ্ছে। এ নিয়ে সরাসরি ক্ষো’ভ জানিয়েছেন এই অভিনেত্রী।

অভিযুক্তকে উদ্দেশ্য করে ফেসবুকে শ্রীলেখা লিখেছেন, আমার নাম দেবাশিস বসু কবে থেকে হলো? এই বেজ- ন্মার বিরু’দ্ধে রিপোর্ট করুন! হ্যাঁ, দায়িত্ব নিয়েই এই শব্দটা ব্যবহার করলাম।

অভিনেত্রীর ডাকে সাড়া দিয়ে অনেকেই এ বিষয় নিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন। একজন পোস্টের কমেন্ট বক্সে লিখেন, চলোওওওও দলে দলে দেবাশীষ বসুর নামে রিপোর্ট করি। আর হ্যাঁ তোমার মুখে গালাগালি শুনতে ভালো লাগে না। খালি ‘সোনা’ আর ‘দুষ্টু’ শুনতে চাই।

জবাবে শ্রীলেখার যুক্তি, এরা দুষ্টু নয়, দুষ্টু শব্দের সঙ্গে একটা মিষ্টত্ব আছে। এই কেসটা অন্য, এরা অসুস্থ ও ক্রিমিন্যাল মনষ্ক। তাই ভাষা কড়ক দরকার এক্ষেত্রে।

তিনি আরো বলেন, আমি নিজে ওই লোকটির ফেসবুক প্রোফাইল দেখেছি। লোকটি পুরোপুরিবাবে বি’কৃতমনস্ক। বেছে বেছে আমার গ্ল্যামারাস ছবিগুলোই ব্যবহার করেছে। সঙ্গে ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য।

সোশ্যাল মিডিয়ায় গোটা বিষয়টি নিয়ে শ্রীলেখার অনুরাগী ও বন্ধুরা যেভাবে সরব হয়েছেন তাতে খুশি অভিনেত্রী। বললেন, সোশ্যাল বন্ধুরাই আমার হয়ে মুখ খুলছেন। প্রতিবাদ করছেন। ভালো লাগছে। কৃতজ্ঞ তাদের কাছে।

তবে পুরো বিষয়টি নিয়ে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ জানাবেন বলে ঠিক করছেন শ্রীলেখা।

উল্লেখ্য, ফেসুবকে শ্রীলেখার একটি ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজ রয়েছে, পাশাপাশি নিজের একটি ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টও রয়েছে।

হিন্দু হয়েও ইসলাম পালন করেন ঢালিউডের এই অভিনেত্রী

ঢালিউড চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় মুখ তিনি। রুপালি পর্দায় খ’ল চরিত্রে অভিনয় করে মুগ্ধ করেছেন দর্শকদের। এরই মধ্যে ৮ শতাধিক সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি। সম্প্রতি একটি অনুষ্ঠানে এসে শাহনাজ পারভিন দুলারী জানালেন, হিন্দু হয়েও ইসলাম ধর্ম পালন করছেন তিনি।

দুলারী বলেন, অভিনয় জগতে আসার পর বাড়ি গেলাম। কিন্তু আমার মা আমাকে বাড়িতে জায়গা দিলো না। আমি মূলত হিন্দু। আমার নাম আল্পনা দুলারী দে। তবে আমি ইসলাম ধর্ম পালন করি। এখন আমার নাম শাহনাজ পারভিন দুলারী। আমি ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়ি, কোরবানি দিই, রোজার মাসে রোজা রাখি। আমি বাড়ি যাওয়ার পর আমাকে বাড়িতে উঠতে দেয়া হয়নি।

তিনি বলেন, আমার কাকা, জেঠা যারা ছিলেন তারা বলেছিল- আমাকে বাড়িতে জায়গা দিলে আমার বাবা-মাকে সমাজে একঘরে করে রাখবে। তখন আমি ভাবলাম- আমার জন্য সবার এ সাজা পেতে হবে কেন? এরপর বাড়ি থেকে চলে আসি। সিনেমায় কাজ শুরু করে দেই।

শেয়ার করুন !
  • 9
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply