ধানের শীষে নির্বাচন করছে চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধী জামায়াত নেতারা!

0

সময় এখন ডেস্ক:

বিএনপি এবার আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সারাদেশে ২০৬টি আসনে প্রতিনিধি দিয়েছে। বাকিগুলো ২০ দলীয় শরিক জোট ও ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের জন্যে। কিন্তু বিএনপির শরিকদের জন্যে রাখা বেশিরভাগ আসনের মনোনীত প্রার্থীই যুদ্ধাপরাধের দায়ে তালিকাভুক্ত জামায়াতের শীর্ষ নেতা। তাছাড়া বিএনপি থেকে জামায়াতকে দেওয়া ২৫টি আসনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করবে জামায়াত।

২০১২ সালে তৎকালীন ৪০ জন জীবিত শীর্ষ যুদ্ধাপরাধীদের একটি তালিকা তৈরি করা হয়েছিল ১৯৭১ সালে মানবতা বিরোধী অপরাধের সাথে জড়িতদের। তালিকায় রাজনীতিতে সক্রিয়, নিষ্ক্রিয়, গুরুত্বপূর্ণ, অগুরুত্বপূর্ণ সব ধরনের নামই ছিল। ওই তালিকায় থাকা গোলাম আযম, মুজাহিদ, কামারুজ্জামান, নিজামী, কাদের মোল্লা, মীর কাশেম, ঘোড়া আজিজ, সাঈদী, আলিম, কাওসার, বাচ্চু, সাকা চৌধুরীসহ অধিকাংশ যুদ্ধাপরাধীদেরকেই বিচারের আওতায় আনা গেছে। এদের অনেকের ফাঁসিও হয়েছে।

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকার ক্ষমতা আসার পর সেই তালিকা ধরে শীর্ষ যুদ্ধাপরাধীদের অনেকের বিচার করেছে এবং ফাঁসি কার্যকর করেছে। প্রার্থী নিয়ে শরিক দলের সঙ্গে বিএনপির এই রশি টানাটানি শুরু হয়েছে কেন্দ্র থেকে। কিন্তু যুদ্ধাপরাধের দায়ে এখনো অভিযুক্ত বেশির ভাগ জামায়াতের নেতাই এবার বিএনপির মনোনীত প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করছেন বিভিন্ন আসন থেকে।

৪০ জন জীবিত শীর্ষ যুদ্ধাপরাধীদের সেই তালিকার মধ্যে জামায়াতের রাজনীতিতে এখনো সক্রিয় আছেন ৮/১০ জন। এদের মধ্যে বিএনপি থেকে ধানের শীষ প্রতীকে জামায়াতের যে যুদ্ধাপরাধীরা মনোনয়ন পেয়েছে তারা- মাওলানা আবদুল হাকিম (ঠাকুরগাঁও-২), গাজী নজরুল ইসলাম (সাতক্ষীরা-৪), মাওলানা ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী (সিলেট-৫), মাওলানা হাবিবুর রহমান (সিলেট-৬), অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার (খুলনা-৫)। তবে গিয়াস কাদের চৌধুরী (চট্টগ্রাম-৭), আ ন ম শামসুল ইসলাম (চট্টগ্রাম-১৫)। এই প্রার্থীদের মনোনয়ন এখনো ঝুলে আছে বিভিন্ন কারণে।

জামায়াতকে দেয়া হয়েছে যে আসনগুলো-

জামায়াতকে মোট ২৫টি আসনে ধানের শীষ প্রতীক দেওয়ার কথা জানা গেছে। আসনগুলো হলো- ঠাকুরগাঁও-২ (আবদুল হাকিম), দিনাজপুর-১ (মোহাম্মদ হানিফ), দিনাজপুর-৬ (আনোয়ারুল ইসলাম), নীলফামারী-২ (মনিরুজ্জামান মন্টু), নীলফামারী-৩ (আজিজুল ইসলাম), গাইবান্ধা-১ (মাজেদুর রহমান সরকার), সিরাজগঞ্জ-৪ (রফিকুল ইসলাম খান), পাবনা-৫ (ইকবাল হুসাইন), ঝিনাইদহ-৩ (মতিয়ার রহমান), যশোর-২ (আবু সাঈদ মুহাম্মদ শাহাদাত হোসাইন), বাগেরহাট-৩ (আবদুল ওয়াদুদ), বাগেরহাট-৪ (আবদুল আলীম), খুলনা-৫ (মিয়া গোলাম পরওয়ার), খুলনা-৬ (আবুল কালাম আজাদ), সাতক্ষীরা-২ (আবদুল খালেক), সাতক্ষীরা-৩ (রবিউল বাশার), সাতক্ষীরা-৪ (গাজী নজরুল ইসলাম), পিরোজপুর-১ (শামীম সাঈদী), ঢাকা-১৫ (শফিকুর রহমান), কুমিল্লা-১১ (সৈয়দ আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তাহের), চট্টগ্রাম-১৫ (আ ন ম শামসুল ইসলাম), কক্সবাজার-২ (হামিদুর রহমান আযাদ), সিলেট-৫ (ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী), সিলেট-৬ (হাবিবুর রহমান) ও রংপুর-৫ আসন (গোলাম রাব্বানী)।

শেয়ার করুন !
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply