গভীর নজরদারির পর ৯টি মসজিদ বন্ধ করেছে ফ্রান্স

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

গত কয়েক সপ্তাহে প্যারিসের একাধিক মসজিদ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ফ্রান্সের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেরাল্ড ডারমানিয়ান।

আজ শনিবার (১৫ ডিসেম্বর) ফরাসি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এক টুইট বার্তায় জানান, বিশেষ নজরদারিতে থাকা ফ্রান্সের ১৮টি মসজিদের ৯টি মসজিদ ও ইবাদতের স্থান গত কয়েক সপ্তাহে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ইসলামী উ’গ্র মতাদর্শের প্রচার ও প্রসার প্রতিরোধে আমরা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করছি।

এর আগে গত ২ ডিসেম্বর ফরাসি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ফ্রান্সের ৭৬টি মসজিদের ওপর নজরদারি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছিলেন।

অবশ্য ৯টি মসজিদ নিরাপত্তাজনিত শর্তাবলি পূরণ না করায় বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে জানা যায়। এর অধিকাংশ মসজিদই প্যারিসে অবস্থিত।

দীর্ঘদিন যাবত ফরাসি সরকার ইসলামী উ’গ্র মতাদর্শ প্রচার, মুসলিম সংগঠন ও মসজিদ নিয়ন্ত্রণে আইন প্রণয়নের চেষ্টা করছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ফরাসি ‘প্রজাতন্ত্রের মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধা’ নামে একটি খসড়া আইন প্রকাশ করে। আগামী সোমবার তা মন্ত্রীপরিষদে পেশ করা হবে।

এরও আগে ফ্রান্সের ধর্মীয় সম্প্রীতি তৈরি করতে ‘ফ্রেঞ্চ কাউন্সিল ফর ইসলামিক রিলিজিয়ান’ গঠন করা হয়। ইসলাম সংশ্লিষ্ট বক্তব্যগুলোতে চরম পন্থা পরিহার করে প্রজাতন্ত্রের মূল্যবোধ বজায় রাখতে ইসলামী সংগঠনগুলোতে ব্যাপক পরিবর্তন আনার ঘোষণা দেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ।

প্রসঙ্গত, গত ১৬ অক্টোবর ইসলাম সং’কটে রয়েছে বলে প্রকাশ্যে মন্তব্য করেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। সেই সঙ্গে ইসলামী উ’গ্র মতাদর্শের বিরু’দ্ধে ব্যাপক অভিযান চালানোর ঘোষণা দিলে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি।

একই সময় শিক্ষার্থীদের মুহাম্মদ (স.)-এর কল্পিত চিত্র প্রদর্শনের জেরে স্যামুয়েল প্যাটি নামে এক শিক্ষককে হ’ত্যা করে এক যুবক। এরপর বাক স্বাধীনতায় বিশ্বাসী ফ্রান্স সরকার মুহাম্মদ (স.) এর কল্পিত চিত্র প্রদর্শন করে যাবে বলে জানান ম্যাক্রোঁ।

বিপরীতে ফ্রান্সে ইসলামপন্থী উ’গ্র মতাদর্শী কয়েকটি সংগঠনের নামে না’শকতা চালানো হয়। যাতে প্রাণ হারান আরও কয়েকজন নাগরিক। এ নিয়ে ইসলামপন্থীদের বিরু’দ্ধে তীব্র সমালোচনা শুরু হয় দেশজুড়ে। এসব ঘটনার পেছনে উ’স্কানিদাতা হিসেবে তুরস্কসহ কয়েকটি মুসলিম অধ্যুষিত দেশকে দায়ী করা হয়।

শেয়ার করুন !
  • 75
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply