মুশতাকের স্বাভাবিক মৃ’ত্যুতে তাসনিম-পিনাকীদের গুজবের নেপথ্যে

0

বিশেষ প্রতিবেদন:

রাষ্ট্রবিরোধী অপপ্রচারের দায়ে অভিযুক্ত লেখক মুশতাক আহমেদের স্বাভাবিক মৃ’ত্যুকে ভিন্নখাতে নিতে গুজব ছড়াচ্ছে চিহ্নিত দেশবিরোধী তাসনিম খলিল, ডেভিড বার্গম্যান, পিনাকী ভট্টাচার্যরা।

বিভিন্ন সময় সরকারকে চাপে ফেলতে দেশী-বিদেশী অপশক্তির সাহায্যে গুজব এবং ষড়’যন্ত্র পরিচালনাকারী এই চক্র মুশতাক আহমেদকে নির্যা’তন করে মা’রা হয়েছে বলে অনলাইনে প্রচার করছে। অথচ প্রকৃত সত্য হচ্ছে, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা’রা যান মুশতাক আহমেদ। তার শরীরে কোনো ধরণের জ’খম ছিল না।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাতে গাজীপুরের কাশিমপুর জেলে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে মুশতাক আহমেদকে প্রথমে কারা হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। এরপর তাকে গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা’রা যান।

মুশতাক আহমেদের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, জেলে যাওয়ার আগে থেকেই তিনি উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিসসহ নানাবিধ শারীরিক জটিলতায় ভুগছিলেন। এসব জটিলতার কারণেই তিনি মা’রা গেছেন বলে জানিয়েছে কারা সূত্র।

হাসপাতাল মর্গে মুশতাক আহমেদের চাচাতো ভাই ডা. নাফিছুর রহমান বলেন, মুশতাকের ময়না তদন্ত হয়েছে। আমাদের কোনো অভিযোগ নাই।

যেখানে মুশতাক আহমেদের ভাইয়ের কোন অভিযোগ নেই, সেখানে এই ঘটনাকে ভিন্নখাতে নিয়ে সরকারকে চাপে ফেলতে অপপ্রচার শুরু করেছে চিহ্নিত দেশবিরোধী তথাকথিত সাংবাদিক তাসনিম খলিল, আলোকচিত্রী শহিদুল আলম, ডেভিড বার্গম্যান এবং পিনাকী ভট্টাচার্য গং।

এই তাসনিম খলিল গংরা অতীতেও সরকারের বিরু’দ্ধে নানা ষড়’যন্ত্র প্রচার করেছে। সর্বশেষ আল-জাজিরা টেলিভিশনের মাধ্যমে ভিত্তিহীন এবং মিথ্যা তথ্যের সমন্বয়ে একটি তথাকথিত তথ্যচিত্র বানিয়ে সরকারকে চাপে ফেলার চেষ্টা করেছে তারা। কিন্তু এই তথ্যচিত্র জনগণ প্রত্যাখ্যান করায় এবার তারা নতুন করে মুশতাক আহমেদের ইস্যুতে গোল পাকাচ্ছে।

জানা গেছে, করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশের সাফল্যকে ম্লান করে দিতে গত বছর I am Bangladeshi ফেসবুক পেজের মাধ্যমে অপপ্রচার শুরু করেন মুশতাক আহমেদ, কার্টুনিস্ট কিশোরসহ তাসনিম-পিনাকী গংরা। তারা করোনা সম্পর্কে নানা মিথ্যা তথ্য দিয়ে জনগণকে বিভ্রা’ন্ত করার চেষ্টা করে।

আন্তর্জাতিক মহলে সরকারকে চাপে ফেলতে এসব অপপ্রচার চালায় তারা। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ নিয়ে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে নোং’রামি করে। রাষ্ট্রবিরোধী এসব ষড়’যন্ত্র করায় সেসময় গ্রেপ্তার হন মুশতাক আহমেদ এবং কিশোর।

সূত্র জানায়, আল-জাজিরার অপপ্রচারে কাজ না হওয়ায় এখন নতুন করে মুশতাক আহমেদের ইস্যুকে কেন্দ্র করে দেশে অ’স্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির চক্রান্ত করছে পিনাকী, বার্গম্যান, খলিল গংরা। সরকার পত’নের নানান অপচেষ্টা করে ব্যর্থ হওয়া দেশী-বিদেশী গোষ্ঠীর ক্রীড়নক হিসেবে কাজ করছে এই চক্রটি।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা জানান, সরকার পত’নের চেষ্টায় এই চক্র আগেও নানা ভিত্তিহীন তথ্য প্রচার করেছে। দেশে বি’শৃঙ্খলা সৃষ্টির জন্য দেশী-বিদেশী অপশক্তির কাছ থেকে বিপুল অঙ্কের টাকার বিনিময়ে এরা অপপ্রচার চালায়।

এর আগে আল-জাজিরার সাথে মিলেও এরা সরকার পত’নের চেষ্টা চালিয়েছে। কিন্তু সে চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ায় আবার নতুন অপপ্রচারে নেমেছে। এদের অপপ্রচার থেকে দেশের জনগণকে সাবধান থাকারও আহবান জানান রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। নিউজব্যাংক।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!