বঙ্গবন্ধুর ১শ ফুট উঁচু ভাস্কর্য নির্মাণ চুয়াডাঙ্গায়

0

সময় এখন ডেস্ক:

বাঙালি জাতির জনক, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উঁচু ভাস্কর্য নির্মাণ করা হবে চুয়াডাঙ্গায়। যেটি হবে বাংলাদেশের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর সবচেয়ে উচ্চতম ভাস্কর্য। জেলা প্রশাসক গোপাল চন্দ্র দাস এ খবরটি নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, ভাস্কর্যটি নির্মাণ করবেন বাংলাদেশে ভাস্কর্য নির্মাণের প্রধান পরিকল্পনাকারী মৃণাল হক।

চুয়াডাঙ্গায় বঙ্গবন্ধুর উচ্চতম ভাস্কর্য নির্মাণের খবরে উচ্ছসিত চুয়াডাঙ্গাবাসী। মঙ্গলবার সকালে খবরটি জানাজানি হলে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন মুক্তিযোদ্ধাসহ সর্বস্তরের মানুষ। চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক গোপাল চন্দ্র দাস জানান, চুয়াডাঙ্গাবাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা এবার পূরণ হতে চলেছে। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে এবার চুয়াডাঙ্গায় নির্মিত হবে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য। এটি নির্মিত হবে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের টেনিস গ্রাউন্ডের পাশে। এর উচ্চতা হবে একশ ফুট। ভাস্কর্যটি নির্মাণ করবেন মৃণাল হক।

জেলা প্রশাসক আরো জানান, চুয়াডাঙ্গায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যটি নির্মিত হলে এটিই হবে বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর সবচেয়ে উঁচু ভাস্কর্য। কারণ, চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধুর যে ভাস্কর্যটি রয়েছে সেটির উচ্চতা ৬৬ ফুট, বিমানবন্দরে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক যে ভাস্কর্যটি রয়েছে তার উচ্চতা ৫৩.৫০ ফুট।

চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ভাস্কর্য নির্মাণ নিয়ে মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রশাসকের সন্মেলন কক্ষে একটি মতবিনিময় সভাও অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা প্রশাসক গোপাল চন্দ্র দাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই সভায় জাতীয় সংসদের হুইপ চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন, পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান, চুয়াডাঙ্গা পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু, দর্শনা পৌর মেয়র মতিয়ার রহমান, আলমডাঙ্গার মেয়র হাসান কাদির গণু, ভাস্কর্য নির্মাতা মৃণাল হকসহ সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সভা শেষে তারা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের টেনিস গ্রাউন্ডের পাশে প্রাথমিক জায়গা নির্ধারণ করেন এবং জায়গাটি ঘুরে দেখেন।

জাতীয় সংসদের হুইপ চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন জানান, একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে আজ আমি অনেক আনন্দিত। কারণ চুয়াডাঙ্গাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হতে চলেছে। তিনি জানান, এমন মহৎ কাজে আমার পক্ষ থেকে সব ধরণের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছি জেলা প্রশাসনকে।

ভাস্কর্য নির্মাতা মৃণাল হক জানান, চুয়াডাঙ্গার ১শ ফুটের এই ভাস্কর্যটি হবে বাংলাদেশের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর সবচেয়ে উচ্চতম ভাস্কর্য। এটি নির্মাণ করতে সময় লাগবে ৫ মাস। তবে ভাস্কর্যটি নির্মাণে কত টাকা ব্যয় হবে এটি তাৎক্ষণিকভাবে জানাতে পারেননি তিনি।

শেয়ার করুন !
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply