একই নম্বরে ভিন্ন অপারেটর: রবিতে চলে গেছেন ৬৮% গ্রাহক!

0

বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি ডেস্ক:

নম্বর অপরিবর্তিত রেখে অপারেটর পরিবর্তন বা এমএনপি সেবা নেয়া গ্রাহকের ৬৮ শতাংশই বেছে নিয়েছেন রবি। গতকাল মঙ্গলবার বিটিআরসির দেয়া এক প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০১৮ সালের ১ অক্টোবর দেশে এমএনপি চালুর পর ৩ মাসে অপারেটর বদলেছেন ১ লাখ ৬ হাজার ৩৪৩ জন। এর মধ্যে রবিতেই এসেছে ৭২ হাজার ৫ জন। এই সময়ে অপারেটরটি ছেড়ে গেছেন ২০ হাজার ৪০৬ জন গ্রাহক।

গ্রাহক সংখ্যায় দেশের সবচেয়ে বড় অপারেটর গ্রামীণফোন গ্রাহক পেয়েছে ১০ হাজার ৪৯১ জন। বিপরীতে অপারেটরটি ছেড়ে গেছে ৪৯ হাজার ৬৫৮ জন। বাংলালিংকে এসেছে ২২ হাজার ৩২৫ জন গ্রাহক। ছেড়ে গেছে ৩৪ হাজার ২৫৬ জন। সরকারি অপারেটর টেলিটকে এসেছে ১ হাজার ৫২২ জন। অপারেটরটি ছেড়েছে ২ হাজার ৫২৩ জন গ্রাহক।

এই সময়ে এমএনপি সেবা নিতে আবেদন করেও তা পাননি ৮৫ হাজার ৩৬৮ জন গ্রাহক।

মোবাইল নম্বর না বদলে অপারেটর পরিবর্তন করবেন যেভাবে

একজন গ্রাহক যদি এমএনপি সেবা নিতে চান তাহলে তাকে প্রথমে যেতে হবে যে অপারেটরের সিম ব্যবহার করতে চান সেই অপারেটরের কাস্টমার কেয়ারে। ধরা যাক, মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী রবি সিম ব্যবহার করেন। তিনি অপারেটর বদলে যদি টেলিটক নিতে চান, তাহলে তাকে টেলিটকের কাস্টমার কেয়ারে যেতে হবে।

কাস্টমার কেয়ার সেন্টারে নতুন সিম তুলতে সর্বোচ্চ সময় লাগবে ৫ মিনিট। এরই মধ্যে কাস্টমার কেয়ার কর্মীরা গ্রাহককে জানাবেন তিনি নতুন সিম পাবেন কিনা। কারণ হিসেবে জানানো হয়, প্রথমেই গ্রাহকের বায়োমেট্রিক ডাটাবেজ (আঙুলের ছাপ) মিলিয়ে দেখা হবে। সেখানে কোনও গড়মিল থাকলে গ্রাহককে জানানো হবে। এছাড়া যদি কোনও পোস্টপেইড গ্রাহকের বিল বকেয়া থাকে তাহলে সংশ্লিষ্ট অপারেটর সবুজ সংকেত পাঠাবে না কাস্টমার কেয়ারে। ফলে কোনও বিল বকেয়া থাকলে তা আগে পরিশোধ করে যেতে হবে। পোস্টপেইডেই যদি আগের কোনও ডিপোজিট থাকে তাহলে গ্রাহক ওই ডিপোজিট ফেরত পাবেন।

এই সেবা নিতে হলে গ্রাহককে ৩০ টাকা ফি দিয়ে (প্রতিবার) আবেদন করতে হবে। গ্রাহককে নতুন একটি সিম দেওয়া হবে। গ্রাহক সঙ্গে সঙ্গেই ওই সিম ব্যবহার করতে পারবেন না। সর্বোচ্চ ৭২ ঘণ্টার মধ্যে নতুন সিম চালু হয়ে যাবে আর আগের সিমটি বন্ধ হয়ে যাবে। গ্রাহক যখন দেখবেন তার মোবাইলে ‘নো সার্ভিস’ দেখাচ্ছে তখন তিনি মোবাইল সেট থেকে পুরনো সিম খুলে নতুন সিম সেট করবেন।

নতুন সিম মোবাইলে সক্রিয় হলে নতুন যে সিম (ভিন্ন অপারেটরের) নেওয়া হয়েছে সেই অপারেটরের নাম প্রদর্শন করবে। এমএনপি সেবা চালু করলে ৩ মাসের (৯০ দিন) আগে অন্য কোনও অপারেটরে বা আগের (পুরনো) অপারেটরে ফেরত যাওয়া যাবে না। ৯০ দিন পরে গ্রাহক অন্য অপারেটরে যেতে চাইলে সে অপারেটরের কাস্টমার কেয়ারে গিয়ে একই প্রক্রিয়া অনুসরণ করে নতুন সিম নিতে পারবেন। নতুন সিম নেওয়ার পর গ্রাহককে ব্যালেন্স রিচার্জ নতুন সিমেই করতে হবে।

শেয়ার করুন !
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply