বাংলাদেশে জঙ্গিবাদী বইয়ের প্রচার প্রসারের নেপথ্যে গোপন বিনিয়োগ

0

মুক্তমঞ্চ:

আমরা যে জঙ্গিবাদ নিয়ে শ’ঙ্কিত তার প্রচার প্রসারে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে কয়েকটি প্রকাশনা সংস্থা ও ইউটিউব চ্যানেল। এর অনেক কিছুই রহস্যে ঘেরা!

১. খবরে পড়লাম রকমারি ডটকমের ‘আলোকিত’ তালিকার লেখক আলী হাসান উসামা নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের সঙ্গে জড়িত। উসামা প্রকাশ্যেই ওয়াজ মাহফিলে জঙ্গি মতাদর্শের জানান দেয়। কিন্তু আরিফ আজাদের মতো পর্দানশীন ব্যক্তির সঙ্গে উসামার সম্পর্ক হলো কীভাবে, তা বোঝা দরকার।

আরিফ আজাদের লেখা “প্রত্যাবর্তন” বইটির “শরঈ সম্পাদক” উসামা। অর্থাৎ লেখায় শরীয়তের কোনো ল’ঙ্ঘন হয়েছে কি না তা যাচাই করেছে উসামা। তাদের সম্পর্কের যোগসূত্র কী?

২. রাগীব সারজানি মিশরের একজন মুত্রনালী চিকিৎসক। সার্জারি করা তার পেশা বলে সার্জেন রাগীব থেকে নাম হয় রাগীব সারজানি। আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন মুসলিম ব্রাদারহুডের সঙ্গে জড়িত জঙ্গি রাগীব ‘ইন্টারন্যাশনাল ওলামা কাউন্সিল’ নামে একটি সংগঠনের সদস্য, যা ইউসুফ কারজাভির নেতৃত্বে আত্ম- ঘা’তি হাম’লাকে জায়েজ ফতোয়া দেয়ায় বেশিরভাগ আরব দেশে নিষিদ্ধ হয়।

রাগীব সারজানির ইংরেজিতে প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা দুটি হলেও বাংলায় প্রকাশিত বই ১০টি! তার নামে উইকিপিডিয়ায় বাংলায় পেইজ খোলা হয়েছে রকমারি ডটকমে প্রাপ্ত বইয়ের রেফারেন্স দিয়ে। মূল প্রকাশক মাকতাবাতুল হাসান প্রকাশনী। আর্থিক দিক বিবেচনা করলে বই বিক্রি থেকে কাগজের দামও আসবে না। তাহলে জঙ্গি মতাদর্শের এসব বই প্রকাশ ও ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেয়ার জন্য বিনিয়োগ করছে কারা?

৩. সৌদি আরবের মতো বাংলাদেশেও জামায়াতের প্রতিষ্ঠাতা আবু আলা মওদুদীর বই নিষিদ্ধ করা হয়েছে বলে খবর প্রকাশিত হয়েছিল। কিন্তু জামায়াতের মালিকানাধীন আধুনিক প্রকাশনী, বাংলাদেশ ইসলামিক সেন্টার, আল কোরআন একাডেমী পাবলিকেশন্স ইত্যাদি থেকে প্রকাশিত বইগুলো রকমারি ডটকম ছাড়াও পিডিএফ ভার্সনে পাওয়া যায়।

৪. ইউটিউবে জঙ্গিবাদ প্রসারে বিশেষ ভূমিকা পালন করে তামিম আদনানীর উম্মাহ চ্যানেল ও জামায়াতপন্থী মো. নাসির উদ্দিনের মুসলিম টিভি। প্রথমটি সিরিয়া থেকে পরিচালিত। দ্বিতীয়টি, অর্থাৎ মুসলিম টিভিতে প্রতিদিন আপলোড হয় অন্তত ৩/৪টি ভিডিও। মূলত জামায়াতপন্থী বক্তাদের ওয়াজ আপলোড হয় এখানে। বড় অংকের ফান্ডিং ছাড়া এই পরিসরে কার্যক্রম চালানো সম্ভব নয়। তাহলে কারা বিনিয়োগ করছে?

উল্লেখ্য, হেফাজতে ইসলামের বক্তাদের বক্তব্যের প্রভাব থাকে তাৎক্ষণিক বা সীমিত সময়ের জন্য। কিন্তু ইবলিশি স্টাইলে অপপ্রচার ও ব্রেইন ওয়াশের কাজটি করে মিজানুর রহমান আজহারী, আব্দুর রহিম, আবুল কালাম আজাদ বাশার, তারেক মনোয়ার ও আহমদউল্লাহর মতো জামায়াতি বক্তারা। কিন্তু এদেরকে কখনোই জবাবদিহিতার আওতায় আনা হয়নি! কেন?

কোনো প্রকাশনা বা চ্যানেল দাতব্য সংস্থা নয়। তাই লাভ ছাড়া কেউ বিনিয়োগ করবে না। কিন্তু বাস্তবে দেখা যাচ্ছে, লাভের আশা ছাড়াই বিশেষ শ্রেণীর বই প্রকাশিত হচ্ছে। যেমন- সৈয়দ কুতুব প্রণীত গ্রন্থ- ফি জিলালিল কোরআনকে কোনো আলেমই তাফসির বলে গণ্য করেন না। অথচ ২০ খণ্ডের এই বই প্রকাশিত হয়েই চলেছে।

সৈয়দ কুতুব, হাসান আল বান্না, ইউসুফ কারজাভিসহ বহু বিত’র্কিত জঙ্গির বই বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রকাশনা সংস্থা থেকে নিয়মিত প্রকাশিত হচ্ছে। যৌ- জেহাদের একনিষ্ঠ সমর্থক মিশরের বিত’র্কিত লেখিকা হানান লাশিনের লেখা বইয়ের অনুবাদ প্রকাশিত হচ্ছে নারীদের ইসলাম কায়েমে রাজপথে নামানোর উদ্দেশ্যে।

এমনকি কোমলমতি শিশুদের লক্ষ্য করেও বিভিন্ন ধরণের উগ্রবাদী মতাদর্শ সম্বলিত বই প্রকাশিত হচ্ছে নিয়মিত। এসব বইতে দেশ ও জাতিকে উপেক্ষা করে শুধুমাত্র ধর্মের কথা ভাবতে বলা হয়েছে!

মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাষ্ট্র মিশরে যে সকল বই আলেমদের মতামত অনুসারে সরকারিভাবে নিষিদ্ধ বিবেচিত, সেসব বই প্রকাশিত হচ্ছে বাংলাদেশে! কারা এই খাতে বিনিয়োগ করছে, তা উন্মোচন করা প্রয়োজন। সংশ্লিষ্ট প্রকাশকদের জিজ্ঞাসাবাদ করলেই অনেক সূত্র পাওয়া যাবে। এরাই মূলত হেফাজতের নাটের গুরু।

লেখক: আব্দুল্লাহ হারুণ জুয়েল
পরিচিতি: কলামিস্ট, ইসলামি গবেষক, রাজনৈতিক বিশ্লেষক।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!