এসএসএফ সদস্যদের দক্ষতায় মুগ্ধ বিদেশি অতিথিরা

0

প্রতিরক্ষা ডেস্ক:

স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সের (এসএসএফ) দক্ষতা বিদেশি অতিথিদেরও মুগ্ধ করেছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার সকালে এসএসএফ এর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সে গণভবন থেকে যুক্ত হয়ে এ মন্তব্য করেন সরকারপ্রধান।

তিনি বলেন, যখনই যে এসেছেন, আমাদের এসএসএফ সদস্যরা এত চমৎকারভাবে তাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছেন যে প্রত্যেকেই প্রশংসা করেছেন। সকলেই তাদের দক্ষতা ও আন্তরিকতা দেখে মুগ্ধ হয়েছেন।

রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানের পাশাপাশি দেশে কোনো রাষ্ট্রীয় বিদেশি অতিথি এলে তাদের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকে এসএসএফ।

এ বছরের মার্চে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালনে যে ১০ দিনের অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়েছিল, এতে প্রতিবেশী দেশের রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানরাও শামিল হন। বিদেশি এই অতিথিদের নিরাপত্তার সার্বিক দায়িত্ব ছিল এসএসএফ এর ওপর।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা যেমন বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সামনে রেখে ব্যাপক কর্মসূচি নিই। এ সময়টাতে একদিকে যেমন করোনা ভাইরাসের স্বাস্থ্যবিধি মানা এবং অন্যদিকে আমন্ত্রিত অতিথি ও তাদের সফরসঙ্গীদের নিরাপত্তা দেয়া- এটা একটা কঠিন দায়িত্ব।

খুব বড় একটা চ্যালেঞ্জ ছিল। সে সময় এসএসএফ অত্যন্ত দক্ষতার সাথে আমাদের আমন্ত্রিত অতিথিদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে এবং সমস্ত আয়োজন অত্যন্ত সুচারুভাবে আমরা করতে পেরেছি। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানের সফলতার মধ্যেও এসএসএফ এর যথেষ্ট অবদান রয়েছে।

অনুষ্ঠানে দেশে কোনো মানুষ গৃহহারা থাকবে না বলেও দৃঢ় প্রত্যয় জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, আজকে যে বাংলাদেশকে জাতির পিতা মাত্র সাড়ে ৩ বছরে স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে রেখে গিয়েছিলেন, সেই দেশ আজ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে। এটা আমাদের ধরে রাখা এবং এগিয়ে যাওয়া দরকার। আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।

দারিদ্র্যের হার হ্রাস করা, এটা আমাদের একটা লক্ষ্য। বাংলাদেশের একটি মানুষও গৃহহারা থাকবে না, বাংলাদেশ দারিদ্র্যের কষাঘা’তে জর্জরিত হবে না।

এসএসএফ সম্পর্কে:

স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্স (এসএসএফ) একটি বাংলাদেশী আইন প্রয়োগকারী বিশেষ সংস্থা। যা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, রাষ্টপতি, জাতির পিতার পরিবারবর্গসহ রাষ্ট্র কর্তৃক ঘোষিত অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের (ভিভিআইপি) নিরাপত্তায় নিয়োজিত।

এসএসএফ বেসামরিক প্রশাসন, নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর সাথে সমন্বয় সাধন করে দেশ ও দেশের বাইরে উল্লেখিত ব্যক্তিদের শারীরিক নিরাপত্তায় যে কোনো ধরনের হুম’কি থেকে রক্ষা ও সেগুলো প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকে। এছাড়াও তারা অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের বাড়ি এবং কর্মস্থলে নিরাপত্তা দিয়ে থাকে।

এসএসএফ এর কার্যক্রম পরিচালনায় যে কোন সময় প্রয়োজন হলে তারা দেশের অন্যান্য আইন প্রয়োগকারী অন্যান্য সংস্থা, যেমন- আধা সামরিক বাহিনী এবং প্রতিরক্ষা ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর সাহায্য নিতে পারে। পরোয়ানা ছাড়া যে কাউকে গ্রেপ্তারের ক্ষমতা রয়েছে এ সংস্থাটির।

শেয়ার করুন !
  • 167
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!