ব্ল্যাকমেলিং করতেন পরীমনিও!

0

সময় এখন ডেস্ক:

বিদেশি মদ ও বিভিন্ন ধরণের মা’ দকদ্রব্যসহ আটকের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পরীমনির কাছ থেকে বেশ কিছু তথ্য পেয়েছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‌্যাব)। বাহিনীটি বলছে, দেশে বিদেশে বিভিন্ন পার্টিতে যোগ দিয়ে এবং বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে ঘনিষ্ট হয়ে বিপুল অর্থ আয় করেছেন এই অভিনেত্রী।

চলচ্চিত্র পরিচালক ও প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজ এবং মিশু হাসান নামে এক ব্যক্তির হাত ধরে পরীমনি অর্থের ‘মোহে ডুবে যান’ বলে জিজ্ঞাসাদে উঠে এসেছে।

পরীমনির বনানীর বাসায় অভিযান শেষে বুধবার রাতে তাকে নিজেদের জিম্মায় র‌্যাবের হেডকোয়ার্টারে নিয়ে যাওয়া হয়। এই অভিনেত্রীর বাসায় অভিযান শেষ হতেই বনানীতেই চালিয়ে আটক করা হয় রাজকে।

র‌্যাব হেডকোয়ার্টারে মাঝরাত পর্যন্ত জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় বলে নিশ্চিত করেন বাহিনীটির দায়িত্বশীল কয়েকটি সূত্র।

তারা বলছেন, বিপুল পরিমাণ অর্থের কারণে উশৃঙ্খল জীবনযাপন করতেন পরীমনি। বিভিন্ন মহলের উচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তিদের সঙ্গে যোগাযোগের কথা জানিয়েছেন তিনি। এদের মধ্যে প্রভাবশালী ব্যবসায়ী, রাজনিতীবিদ, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারাও রয়েছেন।

সূত্রগুলো জানায়, র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখা বেশ কিছুদিন ধরে রাজধানীর বিভিন্ন পার্টি, তাদের আয়োজক ও কয়েকজন বিতর্কিত সেলেব্রেটির কর্মকাণ্ডের ওপর নজরদারি করে আসছিল। এর ধারাবাহিকতায় একটি সিন্ডিকেটের তথ্য পায় তারা।

যে সিন্ডিকেটে পরিচিত সেলিব্রেটিসহ, উঠতি মডেল এমন অনেক নারী জড়িত। তারা সবসময় মা’ দক নেয় এবং বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির কাছ থেকে নানা সময় ব্ল্যাকমেলের মাধ্যমে টাকা হাতানোর মত কাজও করেছে। সেই সাথে তাদের নিজেদের উৎশৃঙ্খল আচরণের কারণেও কাউকে কাউকে নজরদারিতে আনে র‌্যাব।

এর আগে মডেল পিয়াসা, মৌ এবং চক্রের অন্যতম হোতা মিশু ও তার সহকারি জিসানকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। সেই ব্ল্যাকমেলিং চক্রের সদস্য হিসেবে পরীমনিকেও আটক করা হয়।

যেসব জিনিস পাওয়া গেল পরী-রাজের বাসায়:

পরীমনি এবং ঢাকাই চলচ্চিত্রের পরিচালক ও প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজের বাসায় পাওয়া পণ্যের সিজার লিস্ট (জব্দ তালিকা) প্রস্তুত করেছে র‍্যাব। এই তালিকায় বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদের পাশাপাশি রাখা হয়েছে নিষিদ্ধ ঘোষিত মা’ দকদ্রব্য আইস ও এল’এসডির নাম।

র‍্যাব জানায়, পরীর বাসা থেকে জব্দ করা হয়েছে ৮ বোতল প্লাটিনাম লেবেল, ৩টি ব্ল্যাক লেবেল, ২টি সিভাস রিগ্যাল, ২টি ফক্সগ্রোভ, একটি ব্লু লেবেল, ২টি গ্নেনলিভেট, একটি গ্নেনফিডিখ এর বোতল।

তার বাসা থেকে আরও জব্দ হয়েছে ৪ গ্রাম আইস ও এক স্লট এল’এসডি ব্লট। এছাড়া তালিকায় একটি বং পাইপের কথাও বলা হয়েছে।

এদিকে চলচ্চিত্র প্রযোজক ও পরিচালক নজরুল ইসলাম রাজের অফিস থেকে বিপুল মদ জব্দ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে র‍্যাব। জব্দ তালিকায় উল্লেখ করা হয়েছে তার বাসায় মিলেছে ৭টি গ্নেনলিভেট, ২টি গ্নেনফিডিখ, ৪টি ফক্সগ্রোভ, একটি প্লাটিনাম লেবেল এর বোতল।

এর বাইরে শিসায় ব্যবহৃত চারকোলের একটি প্যাকেট, দুই সেট শিসার সরঞ্জাম, দুই ধরনের শিসা তামাক, শিসা সেবনের জন্য ব্যবহৃত অ্যালুমিনিয়াম ফয়েলের একটি রোল, ৯৭০ পিস ইয়াবার কথাও বলা হয়েছে জব্দ তালিকায়।

এছাড়া প-গ্রাফি চলচ্চিত্র নির্মাণে ব্যবহৃত ১৪টি বিভিন্ন ধরনের সরঞ্জাম, একটি সাউন্ড বক্স ও দুটি মোবাইল ফোন সেট এবং একটি মেমোরি কার্ড জব্দ করা হয়েছে।

এর আগে বুধবার বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত বনানীতে পরীমনির বাসায় অভিযান চালায় র‍্যাব। এ সময় অবৈধ মা’ দকদ্রব্য আইস ও এল’এসডি এবং বিপুল মদ জব্দ করা হয়। রাত সোয়া ৯টার দিকে এই অভিনেত্রীকে র‍্যাব কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

পরীমনির বাসায় অভিযান শেষ না হতেই বনানী ৭ নম্বর সড়কে আরেকটি বাসায় অভিযান শুরু করে র‍্যাবের গোয়েন্দা শাখা। ওই বাসা থেকে ইয়াবা, মদ এবং যৌ-াচারের সরঞ্জাম জব্দ করা হয়। রাজকেও আটক দেখিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় র‍্যাব কার্যালয়ে।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!