সন্তানহীন দম্পতিদের জন্য দেশে চালু হলো নতুন চিকিৎসা পদ্ধতি

0

স্বাস্থ্য বার্তা ডেস্ক:

দেশে প্রথমবারের মতো স্টেম সেল প্রয়োগের মাধ্যমে বন্ধ্যত্ব চিকিৎসা শুরু হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের রিপ্রোডাক্টিভ এন্ডোক্রাইনোলজি অ্যান্ড ইনফার্টিলিটি বিভাগে এই সেবা নিতে পারবেন বন্ধ্যা নারীরা।

ডিম্বাশয়ে স্টেম সেল থেরাপি প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে গর্ভধারণের পদ্ধতিকে দেশে ইনফার্টিলিটি চিকিৎসায় যুগান্তকারী পদক্ষেপ হিসেবে দেখছেন সংশ্লিষ্টরা।

বিশ্ববিদ্যালয় ভবনের ডি-ব্লকে বুধবার এক অনুষ্ঠানে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ।

অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. জাহিদ হোসেন, মেডিক্যাল টেকনোলজি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. দেবব্রত বণিকসহ রিপ্রোডাক্টিভ এন্ডোক্রাইনোলজি অ্যান্ড ইনফার্টিলিটি বিভাগ ও ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগের শিক্ষক, চিকিৎসক ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

চিকিৎসাবিষয়ক অনলাইন ডেটাবেজ পাবমেড ডটগভ-এ বন্ধ্যত্ব দূর করায় স্টেমসেল থেরাপি সম্পর্কে বলা হয়েছে, স্টেম সেল হল স্ব-উৎপাদক, নিজে থেকেই প্রতিলিপি তৈরিকারী আদি কোষ, যা উপযুক্ত পরিস্থিতিতে বিশেষ বিশেষ কোষ তৈরি করতে সক্ষম।

এগুলো মানব ভ্রূণ ও এর পরিণত অবস্থায় বিভিন্ন ধরনের অঙ্গের কোষ গঠন করে। স্টেম সেল বন্ধ্যত্বের চিকিৎসার নতুন দিগন্ত উন্মোচন করেছে।

বিএসএমএমইউতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের রিপ্রোডাক্টিভ এন্ডোক্রাইনোলজি অ্যান্ড ইনফার্টিলিটি বিভাগ দেশে বন্ধ্যত্ব দূরীকরণে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। এই বিভাগের আরও আধুনিকায়ন ও উন্নয়ন করা হবে।

তিনি বলেন, ডিম্বাশয়ে স্টেম সেল প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে নতুন ডিম্বাণু তৈরির প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বন্ধ্যত্বের জটিলতায় ভোগা রোগীদের বায়োলজিক্যাল মা হওয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়। এটি চিকিৎসাবিজ্ঞানে সর্বাধুনিক সংযোজন। স্টেম সেল থেরাপির মাধ্যমে নিজের ডিম্বাণু থেকেই সন্তান লাভ করা সম্ভব।

শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, বর্তমান সময়ে নানা কারণে ডিম্বাশয়ে ডিম্বাণুর স্বল্পতাজনিত বন্ধ্যত্বের সমস্যা উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। এসব রোগীর প্রাকৃতিকভাবে বা স্বাভাবিক উপায়ে গর্ভধারণের সম্ভাবনা মাত্র ৫ থেকে ১০ শতাংশ।

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তাদের বায়োলজিক্যাল মা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না বলে ডোনারের ডিম্বাণু বা ভ্রূণের ওপর নির্ভর করতে হয়, যা আমাদের দেশে সামাজিক বা ধর্মীয় বিধিনিষেধের কারণে সম্ভব হয় না। স্টেম সেল থেরাপি এই জটিলতা দূর করতে সাহায্য করবে।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!