আফগানিস্তানে ২০ দিনের কন্যা শিশুদেরও বিয়ের প্রস্তাব‍!

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তানের পরিবারগুলো পণের বিনিময়ে ২০ দিন বয়সী কন্যাদেরও প্রস্তাব দিচ্ছে বলে জানিয়েছে ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক হেনরিয়েটা ফোর।

গতকাল এক বিবৃতিতে ফোর বলেন, সাম্প্রতিক রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার আগেও শুধুমাত্র হেরাত এবং বাগদিস প্রদেশে ২০১৮ থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে ১৮৩টি বাল্যবিবাহ এবং ১০টি শিশু বিক্রির মামলা নথিভুক্ত করেছে ইউনিসেফের সহযোগী সংস্থাগুলো। যাদের বয়স ৬ মাস থেকে ১৭ বছরের মধ্যে শিশুরা ছিল।

ফোর বলেন, আফগানিস্তানে বাল্যবিবাহ বেড়ে যাওয়ায় আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। সেখানে পণের বিনিময়ে ২০ দিনের কম বয়সী কন্যা শিশুদের ভবিষ্যতে বিয়ের জন্য অভিভাবকদের প্রস্তাব দেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, কোভিড-১৯ মহামারি ও শীতের আগমনে চলমান খাদ্য সংকট বেড়ে গেছে। ২০২০ সালে আফগানিস্তানের প্রায় অর্ধেক জনসংখ্যা এতটাই দরিদ্র ছিল যে, তাদের মৌলিক পুষ্টি বা বিশুদ্ধ খাবার পানিরও অভাব ছিল।

ফোর আরও বলেন, আফগানিস্তানের অত্যন্ত ভয়াবহ অর্থনৈতিক পরিস্থিতি অনেক পরিবারকে দারিদ্র্যতার দিকে ঠেলে দিচ্ছে। এ সব পরিবার তাদের সন্তানদের কাজ করিয়ে বা অল্প বয়সী কন্যা শিশুদের পণের বিনিময়ে বিয়ে দেওয়ার জন্য বাধ্য হচ্ছেন।

অধিকাংশ কিশোরী মেয়েদের এখনও স্কুলে যেতে দেওয়া হয় না, তাই বাল্যবিবাহের ঝুঁকি এখন আরও বেশি। শিক্ষাই মূলত বাল্যবিবাহ এবং শিশু শ্রমের মতো বিষয়গুলো মোকাবিলায় সর্বোত্তম সুরক্ষা ব্যবস্থা- তিনি যোগ করেন।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ পরিবারগুলোর খাদ্য সংকট, শিশু শ্রম এবং বাল্যবিবাহের ঝুঁকি কিছুটা কমাতে ইউনিসেফ একটি নগদ সহায়তা কর্মসূচি শুরু করেছে।

ইউনিসেফ আগামী কয়েক মাসের মধ্যে প্রচেষ্টা বাড়াতে পরিকল্পনা করছে এবং অল্পবয়সী মেয়েদের বিয়ে বন্ধ করার জন্য ধর্মীয় নেতাদের সঙ্গে কাজ করার চেষ্টা করছে।

উল্লেখ্য, এ বছরের আগস্টে আশরাফ ঘানির নেতৃত্বাধীন সরকারের পতন ঘটিয়ে তালেবান দখল নেওয়ার পর থেকেই নারী ও শিশুদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ ছড়িয়ে পড়েছে আফগানিস্তানজুড়ে। দেশটিতে প্রায় ৭ লাখ মানুষ শুধুমাত্র এ বছরই বাস্তুচ্যুত হয়েছেন। এছাড়া ৩৫ লাখেরও বেশি আফগান গত কয়েক দশক ধরে চলা সংঘাতে বাস্তুচ্যুত হয়েছেন।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!