আইএসের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করেছে তালেবান!

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

আফগানিস্তানের দক্ষিণাঞ্চলে সন্দেহভাজন ইসলামিক স্টেট (আইএস) আস্তানাগুলোতে ক্র্যাকডাউন শুরু করেছে তালেবান। সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে আইএস’র হামলা বৃদ্ধি পাওয়ায় তালেবান এই পদক্ষেপ নিয়েছে।

সোমবার (১৫ নভেম্বর) এএফপি’র এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

দেশটির কান্দাহার প্রদেশের অন্তত ৪টি জেলায় ইসলামিক স্টেট-খোরাসানের (আইএস-কে) বিরুদ্ধে এই অভিযান শুরু করেছে তালেবান। যা সোমবার পর্যন্ত অব্যাহত ছিল বলে তালেবানের প্রাদেশিক পুলিশ প্রধান আব্দুল গাফার মোহাম্মদী এএফপিকে জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত ৪ আইএস জঙ্গি নিহত হয়েছে এবং ১০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে একজন একটি বাড়ির ভিতরে আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত হয়েছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তালেবান গোয়েন্দা সংস্থার এক সদস্য এএফপিকে বলেছেন, অভিযানে অন্তত ৩ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন।

স্থানীয় মিডিয়া এক তালেবান কর্মকর্তার বরাত দিয়ে জানান, সোমবার কাবুলের পশ্চিম উপশহরে এক বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। তবে এ ঘটনায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

তালেবান ক্ষমতায় আসার পর গত ৩ মাসে জালালাবাদ, কুন্দুজ, কান্দাহার এবং কাবুলে সক্রিয় হয়েছে আইএস-কে।

গত মাসে এই আইএস-কে কান্দাহারের একটি শিয়া মসজিদে আত্মঘাতী বোমা হামলার দায় স্বীকার করেছে, যাতে অন্তত ৬০ জন নিহত এবং আরও অনেকে আহত হয়েছে।

উত্তর কুন্দুজ প্রদেশে আইএস-কে’র অধিকৃত আরেকটি মসজিদ বিস্ফোরণে ৬০ জনেরও বেশি লোক নিহত হওয়ার এক সপ্তাহ পর এই হামলাটি হয়েছিল।

এর আগে রবিবার কাবুলে আরেক বোমা হামলায় স্থানীয় সাংবাদিকসহ আরও দু’জনকে হত্যার দায় স্বীকার করেছে আইএস-কে।

এদিকে আফগানিস্তানের পরিবারগুলো পণের বিনিময়ে ২০ দিন বয়সী কন্যাদেরও প্রস্তাব দিচ্ছে বলে জানিয়েছে ইউনিসেফ এর নির্বাহী পরিচালক হেনরিয়েটা ফোর।

এক বিবৃতিতে ফোর বলেন, সাম্প্রতিক রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার আগেও শুধুমাত্র হেরাত এবং বাগদিস প্রদেশে ২০১৮ থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে ১৮৩টি বাল্যবিবাহ এবং ১০টি শিশু বিক্রির মামলা নথিভুক্ত করেছে ইউনিসেফের সহযোগী সংস্থাগুলো। যাদের বয়স ৬ মাস থেকে ১৭ বছরের মধ্যে শিশুরা ছিল।

ফোর বলেন, আফগানিস্তানে বাল্যবিবাহ বেড়ে যাওয়ায় আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। সেখানে পণের বিনিময়ে ২০ দিনের কম বয়সী কন্যা শিশুদের ভবিষ্যতে বিয়ের জন্য অভিভাবকদের প্রস্তাব দেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, কোভিড-১৯ মহামারি ও শীতের আগমনে চলমান খাদ্য সংকট বেড়ে গেছে। ২০২০ সালে আফগানিস্তানের প্রায় অর্ধেক জনসংখ্যা এতটাই দরিদ্র ছিল যে, তাদের মৌলিক পুষ্টি বা বিশুদ্ধ খাবার পানিরও অভাব ছিল।

ফোর আরও বলেন, আফগানিস্তানের অত্যন্ত ভয়াবহ অর্থনৈতিক পরিস্থিতি অনেক পরিবারকে দারিদ্র্যতার দিকে ঠেলে দিচ্ছে। এ সব পরিবার তাদের সন্তানদের কাজ করিয়ে বা অল্প বয়সী কন্যা শিশুদের পণের বিনিময়ে বিয়ে দেওয়ার জন্য বাধ্য হচ্ছেন।

অধিকাংশ কিশোরী মেয়েদের এখনও স্কুলে যেতে দেওয়া হয় না, তাই বাল্যবিবাহের ঝুঁকি এখন আরও বেশি। শিক্ষাই মূলত বাল্যবিবাহ এবং শিশু শ্রমের মতো বিষয়গুলো মোকাবিলায় সর্বোত্তম সুরক্ষা ব্যবস্থা- তিনি যোগ করেন।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ পরিবারগুলোর খাদ্য সংকট, শিশু শ্রম এবং বাল্যবিবাহের ঝুঁকি কিছুটা কমাতে ইউনিসেফ একটি নগদ সহায়তা কর্মসূচি শুরু করেছে।

ইউনিসেফ আগামী কয়েক মাসের মধ্যে প্রচেষ্টা বাড়াতে পরিকল্পনা করছে এবং অল্পবয়সী মেয়েদের বিয়ে বন্ধ করার জন্য ধর্মীয় নেতাদের সঙ্গে কাজ করার চেষ্টা করছে।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!