পাকিস্থানি পতাকা পুড়িয়ে প্রতিবাদ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের (ভিডিও)

0

সময় এখন ডেস্ক:

ঢাকায় মিরপুর শেরেবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে নিয়ম বহির্ভূতভাবে পতাকা ওড়ানোর অপরাধে পাকিস্থানের পতাকা পুড়িয়ে প্রতিবাদ করেছে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা। একইসঙ্গে বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন আইন ভঙ্গের অপরাধে পাকিস্থান ক্রিকেট দলের শাস্তি ও দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হওয়ায় বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের অপসারণের দাবি করেছেন।

আজ বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে এ কর্মসূচি পালন করে সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মো. আল মামুন এর সঞ্চালনায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল। আরোও বক্তব্য রাখেন সংগঠনের উপদেষ্টা ও ভাস্কর শিল্পী রাশা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনেট মাহমুদসহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশের বক্তব্যে সংগঠনের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, পতাকা-বিধি লঙ্ঘন করে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে একাত্তরের পরাজিত অপশক্তি পাকিস্থানের পতাকা মিরপুরে খেলার মাঠে ওড়ানোর ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। পাকিস্থানি ক্রিকেট দলের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

এ বিষয়ে বিসিবির নীরব ভূমিকার অপরাধে বিসিবির চেয়ারম্যান নাজমুল হাসান পাপনকে অবিলম্বে অপসারণ করতে হবে। পাকিস্থানের সরবরাহকৃত গ্রেনেড দিয়ে বিএনপি-জামায়াত ২১শে আগস্টে নাজমুল হাসান পাপনের মাতা শহিদ আইভি রহমানকে হত্যা করা হয়েছিল।

সেই পাকিস্থান ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ বিরোধী অপকর্মের বিরুদ্ধে বিসিবি এখনো পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি যা মুক্তিযুদ্ধের আদর্শের সাথে বেইমানি।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মো. আল মামুন বলেন, আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী ম্যাচ চলাকালীন সময় দুই দেশের পতাকা ওড়ানো হয়। কিন্তু অনুশীলনে কোন দেশের পতাকা ওড়ানো এটাই প্রথম এবং ক্রিকেটের ইতিহাসে একটি নজিরবিহীন ঘটনা। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের সময় আমাদেরকে এধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনা দেখতে হলো যা কখনই মেনে নিবে না বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

আইসিসি ও বিসিবিকে অবশ্যই বাংলাদেশের জনগণের নিকট এ ধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনার জন্য জবাবদিহি করতে হবে। পাকিস্থান ক্রিকেট দল বাংলাদেশের পতাকা-বিধি লঙ্ঘন করে দেশের প্রচলিত আইন ও সংবিধানকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়েছে।

উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে পাকিস্থানের পতাকা বাংলাদেশে ওড়ানোর পিছনে মূল কারণ খুঁজে বের করে দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।


ছবি: সংবিধানে পতাকা-বিধি

মহান মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যার মূলহোতা জেনারেল নিয়াজীর ভাতিজা পাকিস্থানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের নির্দেশে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য এহেন ঘটনা সংঘটিত করা হয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখতে হবে।

কারণ একাত্তরে পরাজিত হওয়ার প্রতিশোধ নেয়ার জন্যই বাংলাদেশের বিরুদ্ধে পাকিস্থানের নানাবিধ ষড়যন্ত্র এখনো চলমান রয়েছে। পাকিস্থানি ক্রিকেট দলের এমন ধৃষ্টতায় বিসিবি ও আইসিসির নীরবতার কারণে তাদের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। এ বিষয়ে আইসিসি ও বিসিবিকে অবশ্যই তাদের অবস্থান জাতির সামনে পরিস্কার করতে হবে।

এর আগেও ১৯৮০ সালে বাংলাদেশ সফরে এসে পাকিস্থান ক্রিকেট দল বাংলাদেশকে কটাক্ষ করেছিল। ৭১ সালে পাকিস্থান হানাদার বাহিনীর নৃশংসতা আমরা ভুলে যাইনি। এই মিরপুরেই ১৯৭১ সালে পাকিস্থান হানাদার বাহিনী নারকীয় গণহত্যা, লুটপাট ও ধ- চালিয়েছিল। স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তীতে সেই মিরপুরে পাকিস্থানের পতাকা উড়িয়ে পাকিস্থানি হানাদার বাহিনীর দোসররা চরম ধৃষ্টতা দেখিয়েছে যা মহান মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশের জন্য চরম অবমাননাকর।

বিসিবির নীরব ভূমিকার অপরাধে বিসিবি চেয়ারম্যান নাজমুল হাসান পাপনকে অবিলম্বে অপসারণ করতে হবে। পাকিস্থান ক্রিকেট দলকে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ করার দাবি জানাচ্ছি। এহেন ন্যাক্কারজনক ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে আইসিসি, বিসিবি এবং পাকিস্থান ক্রিকেট টিমকে বাংলাদেশের জনগণের নিকট নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে। অন্যথায় ৩০ লক্ষ শহীদের রক্ত ও লক্ষ লক্ষ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে একাত্তরের পরাজিত অপশক্তি পাকিস্থানী ক্রিকেট দলের বিচার ও তাদের সকল ধরনের খেলা বাতিলের দাবিতে বিসিবি ঘেরাওসহ আরোও কঠোর কর্মসূচী পালন করবে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

দেশবরেণ্য ভাস্কর রাশা বলেন, পতাকা-বিধি লঙ্ঘন করে খেলার মাঠে পাকিস্থানের পতাকা ওড়ানোর মতো ন্যাক্কারজনক ঘটনার বিষয়ে বিসিবির নীরবতা আমাদেরকে হতাশ করেছে। বিসিবির চেয়ারম্যান নাজমুল হাসান পাপনকে অবশ্যই দেশের জনগণের নিকট জবাবদিহি করতে হবে।

৭১-এর পরাজিত অপশক্তি পাকিস্থান এখনো বাংলাদেশকে মেনে নিতে পারেনি। স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে সংবিধান ও আইন লঙ্ঘন আমরা কখনোই মেনে নিতে পারি না। পাকিস্থান ক্রিকেট দল ও বিসিবির দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের কঠোর শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

সংগঠনের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনেট মাহমুদ বলেন, পাকিস্থান ক্রিকেট দলের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। বিসিবির নীরবতাই সমর্থন করে তারা এধরনের ঘটনা সমর্থন করে। সরকার ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে আমরা প্রয়োজনে আইনী পদক্ষেপ নিবো। স্বাধীন বাংলাদেশে একাত্তরের পরাজিত অপশক্তি পাকিস্থানের পতাকা ওড়তে দিবে না বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

ভিডিও:

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!