মাদ্রাসা শিক্ষককে হত্যা করে সেপটিক ট্যাংকে লাশ ফেললো রোহিঙ্গারা

0

কক্সবাজার সংবাদদাতা:

দিন দিন বেড়েই চলেছে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া অকৃতজ্ঞ রোহিঙ্গাদের অপরাধ প্রবণতা। মাদক ব্যবসা, যৌন অপরাধ, চুরি, ডাকাতি, লুটপাট, অযাচিত বৃক্ষ নিধন, স্থানীয়দের সাথে বিবাদ, অপহরণ এমনকি হত্যার মত ঘটনার সাথেও জড়িয়েছে তারা। কিছুদিন আগে এক চিকিৎককে হত্যার পর এবার হত্যা করলো এক কোরানে হাফেজকে।

জানা গেছে, অপহরণের ৯ দিন পর কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সেপটিক ট্যাংক থেকে হাফেজ শফিকুল ইসলাম (২৬) নামে এক মাদ্রাসা শিক্ষকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার দুপুরে কুতুপালং লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মো. আলম মাঝির আওতাধীন সি-আই ব্লক বাথরুমের পেছনের সেপটিক ট্যাংকের ভেতর থেকে তার মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। নিহত শফিকুল ইসলাম একই ব্লকের লোকমান হাকিমের ছেলে এবং দারুস সালাম মাদ্রাসার শিক্ষক।

পুলিশ জানায়, ২১ ফেব্রুয়ারি হাফেজ শফিককে অপহরণ করে রোহিঙ্গারা। ২৫ ফেব্রুয়ারি তার ভাই রফিক ১৩ রোহিঙ্গাকে অভিযুক্ত করে উখিয়া থানায় অপহরণ মামলা করেন। সেদিন রাতেই এজাহারভুক্ত অভিযুক্ত কোরবান আলী ও কেফায়ত উল্লাহকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরদিন গ্রেফতারকৃতরা শফিককে হত্যা করেছে বলে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

কিন্তু তারা শফিককে কোথায় লুকিয়ে রেখেছে তা জানাতে পারেনি। এরপর একই ঘটনার এজাহারভুক্ত দুই নারীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তারপরও সন্ধান মেলেনি শফিকের।

শনিবার সকালে পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সেপটিক ট্যাংকে এক যুবকের মরদেহ রয়েছে বলে জানতে পারে এবং সেখান থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। পরে পুলিশ জানতে পারে ওই মরদেহ হাফেজ শফিকের।

এ বিষয়ে উখিয়া থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) মো. নুরুল ইসলাম মাসুদ বলেন, মরদেহ উদ্ধারের পর শনিবার বিকেলে শফিকের পরিবার মরদেহ শনাক্ত করেছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) ইকবাল হোছাইন চৌধুরী বলেন, কী কারণে ওই মাদ্রাসা শিক্ষককে হত্যা করা হয়েছে রোহিঙ্গারা বিষয়টি নিশ্চিত নয়। তবে ধারণা করছি, রোহিঙ্গাদের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের বলি হয়েছেন হাফেজ শফিক।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!