খালেদা জিয়াকে পুঁজি করে বিএনপির সহিংসতার রাজনীতি!

0

স্পেশাল করেসপন্ডেন্স:

সম্পূর্ণ লিভার নষ্ট, দীর্ঘদিনের অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস ও উচ্চরক্তচাপ, আর্থ্রাইটিস এবং ক্যান্সার সংক্রমণের কারণে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা অস্থিতিশীল। তাকে বিশেষ চিকিৎসা ও অক্সিজেন দিয়ে সুস্থির করার চেষ্টা চলছে।

চিকিৎসকরা বলছেন, আইসিইউ থেকে বের করার মতো শারীরিক অবস্থা নেই খালেদা জিয়ার। স্থানান্তরের চেষ্টা করা হলে হিতে বিপরীত হওয়ার সম্ভবনাই শতভাগ। বিএনপি নেতারা এসব সত্য জানার পরেও খালেদা জিয়াকে বিদেশ পাঠানোর নামে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়ার অপরাজনীতি শুরু করেছেন।

খালেদা জিয়ার পরিবার সূত্রে জানা যায়, তারা এখন খালেদা জিয়ার অবস্থার উন্নতির জন্য দোয়া করছেন। দলীয় নেতারা কোথায় কী বিবৃতি দিচ্ছেন বা এই পরিস্থিকে কাজে লাগিয়ে কীভাবে রাজনৈতিক ফায়দা নিতে চাচ্ছেন, সেসবের সঙ্গে পরিবারের কোনো সম্পর্ক নেই।

কিন্তু দলীয় সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরেই মাঠের রাজনীতিতে জনসমর্থন পায়নি বিএনপি। এমনকি দুর্নীতির দায়ে দণ্ডিত দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জন্যেও কোনো সফল কর্মসূচি দিতে পারেনি নেতারা।

খালেদা জিয়ার অন্ধ সমর্থক বিএনপির তৃণমূল পর্যায়ের কর্মী-সমর্থকদের মনে প্রশ্ন জেগেছে, বিএনপির সিনিয়র নেতারা কি আসলে খালেদা জিয়ার সুস্থতা চায়, নাকি তার অসুস্থতা নিয়ে রাজনীতি করছে!

খালেদা জিয়া এখন মৃত্যুশয্যায়। দীর্ঘদিনের পুরনো সব অসুখে তার অবস্থা অস্থিতিশীল। এই পরিস্থিতে খালেদা জিয়াকে কেন্দ্র করেই বিএনপির রাজনীতি চাঙ্গা করার কৌশল নিয়েছে সিনিয়র নেতারা।

এজন্য মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, রুহুল কবীর রিজভী, মির্জা আব্বাস ও আমানুল্লাহ আমানের পক্ষ থেকে নিজ নিজ বলয়ের নেতাকর্মীদের সক্রিয় করা হচ্ছে। এমনকি দেশের বিভিন্ন স্থানে নাশকতার জন্য উস্কানিমূলক বার্তাও পাঠানো হয়েছে।

খালেদা জিয়ার অবর্তমানে বিএনপির শীর্ষপদে আসার জন্য পেশীশক্তি দেখানোর এই অসুস্থ প্রতিযোগিতায় নেমেছেন নেতারা। এমনকি গণমাধ্যমে ভুল বার্তা দিয়েও উস্কানি ছড়ানো হচ্ছে সাধারণ মানুষের মধ্যে।

তবে সরকারের গোয়েন্দা সংস্থার কাছে এসব তথ্য পৌঁছে যাওয়ায় সতর্ক অবস্থান নিয়েছে সরকার। যেকোনো ধরনের নাশকতা ঠেকাতে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, দীর্ঘদিন নিয়মিত অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় পানের কারণে লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত খালেদা জিয়া। এরসঙ্গে দুই যুগের বেশী সময় ধরে রয়েছে আর্থ্রাইটিস, ক্যান্সার, ডায়াবেটিস ও উচ্চরক্তচাপ। বয়সের কারণে বার্ধক্যজনিত নানারকম সমস্যাও রয়েছে তার।

এসব কারণে তার শরীর আর ওষুধ গ্রহণের মতো অবস্থাতেও নেই, বাঁচিয়ে রাখা হয়েছে কৃত্রিম যন্ত্রপাতির সাহায্যে। দেশের সর্বোচ্চ চিকিৎসা দিয়ে তাকে স্থিতিশীল করার চেষ্টা করছেন চিকিৎসকরা।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!