বিটিআরসির বার্তায় রাতারাতি ডা. মুরাদের ১৭টি কন্টেন্ট সরালো ফেসবুক!

0

সময় এখন ডেস্ক:

সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানের নামে ছিল ৬টি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট। একে একে তার ৫টিই ব্লক করতে পেরেছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি।

শুধু তাই নয়, বিটিআরসির ডিজিটাল সিকিউরিটি টিম মুরাদের প্রায় ৩৮৭টি অডিও-ভিডিও লিংক পেয়েছে যাতে ছিল আপত্তিকর বার্তা। বিটিআরসি সেগুলোর ব্যাপারে ফেসবুকের কাছে মেইল দেয়।

যা আমলে নেয় ফেসবুক; আর দুদিনের মধ্যেই তার ১৭টি অশ্লীল কন্টেন্ট সরিয়ে নেয় তাদের প্ল্যাটফর্ম থেকে।

বৃহস্পতিবার (৯ ডিসেম্বর) টেলিকম রির্পোর্টারদের সংগঠন টিআরএনবির সাথে সংস্থাটি মতবিনিময় সভা করে। যেখানে তথ্যগুলো উল্লেখ করেন খোদ বিটিআরসির চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর শিকদার।

উপস্থিত সাংবাদিকদের মধ্যে অনেকেই এ নিয়ে রীতিমত বিস্ময় প্রকাশ করেন বিটিআরসির এমত করিৎকর্মা অবস্থান দেখে।

যেখানে একই নামে গণ্ডায় গণ্ডায় বাঁশের কেল্লাসহ দেশবিরোধী ও গুজব-নির্ভর বিভিন্ন ফেসবুক আইডি এবং পেজ চলমান আছে; যাদের বিরুদ্ধে হাজার হাজার অভিযোগ থাকলেও বিটিআরসি সেসব বন্ধ করতে ব্যর্থ হয়েছে;

এমনকি বার বার রিপোর্ট করার পরেও ফেসবুক আপত্তিকর কন্টেন্টগুলো ডাউন করে না, সেখানে ডা. মুরাদের বেলায় রাতারাতি সব বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অবাক হয়েছেন তারা।

হাইকোর্টের নির্দেশ:

অডিও-ভিডিও দুই মাধ্যমেই একের পর এক বির্তক ছড়িয়েছেন সাবেক তথ্য ডা. প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান। যার ফলে পদত্যাগ করতে বাধ্য হন তিনি।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান জানান, আদালতের নির্দেশনার লিখিত কপির জন্য তারা অপেক্ষা করেননি। খবর জানার পরপরই সংস্থাটি বসে যায় তাদের ডিজিটাল সিকিউরিটি টিম নিয়ে। সেই টিম প্রায় ৩৮৭টি লিংক খুঁজে পায়। যার আনুষ্ঠানিক অভিযোগ জানানো হয় ফেসবুকের কাছে। ২ দিনের মধ্যে ১৭টি কন্টেন্ট সরিয়ে নেয় ফেসবুক।

ফেসবুকের সাথে আলোচনা:

একটি সময় ছিল যখন বাংলাদেশ নিয়ে ফেসবুক কিংবা ফেসবুক নিয়ে বাংলাদেশের কোনো মাথা ব্যাথা ছিল না। কিন্ত সময়ের সাথে সাথে বোঝা-পড়ার প্রয়োজন পড়ে। গেল একযুগে ফেসবুক ভারতে দুটি এবং সিঙ্গাপুরে একটি অফিস দিয়েছে।

অথচ বাংলাদেশে তাদের অফিস তো দূরের কথা, এ নিয়ে কোনো পরিকল্পনাও স্পষ্ট করেনি ফেসবুক। কেন?

জবাবে বিটিআরসির চেয়ারম্যান জানান, চেষ্টা চলছে। এখন প্রতি তিনমাসে অন্তত একটি মিটিং হচ্ছে ফেসবুকের সাথে। এই আলোচনায় বিভিন্নভাবে বাংলাদেশ ফেসবুকের সাথে যোগাযোগ করেছে।

এ সময় বিটিআরসির মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাসিম পারভেজ দাবি করেন, কুমিল্লা, রংপুরের ঘটনাসহ বিভিন্ন ইস্যুতে ২৬৮টি আপত্তিকর লিংক ফেসবুককে সরিয়ে নিতে বলেছে বিটিআরসি। যার ৯৪টি এরইমধ্যে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ১৭৪টি লিংক এখনও বিশ্লেষণ করছে ফেসবুক।

কীভাবে জানাবেন অভিযোগ?

প্রাতিষ্ঠানিকভাবে কেউ সামাজিক মাধ্যমে আক্রমণের শিকার হলে তার বেশ কিছু সমাধান আছে। কিন্তু ব্যক্তিগতভাবে সামাজিক মাধ্যমে কেউ আক্রমণের শিকার হলে তিনি কী করবেন?

বিটিআরসি চেয়ারম্যান জানান, ভিক্টিম প্রথমে ল-এনফোর্সমেন্টের স্বাভাবিক আশ্রয় নেবেন। এই স্বাভাবিক আইনি প্রক্রিয়ায় নালিশ জানিয়ে একটি চিঠি নিয়ে বিটিআরসিতে আসতে হবে।

বিটিআরসির অনুরোধ:

কল ব্লক, মোবাইল ইন্টারনেট ডাটা ফেরত না পাওয়াসহ টেলিকমখাত সংশ্লিষ্ট নানান সেবা থেকে যখন কোনো গ্রাহক বঞ্চিত হন, মামলা করার ক্ষেত্রে নিম্ন আদালতে তাদের অনেকে বিটিআরসিকে দায়ী করে অভিযোগ জানান।

বিটিআরসি চেয়ারম্যান অনুরোধ জানান, বিটিআরসিকে আসামি না করতে। কারণ সেবা দেওয়ার ঘাটতি বা অব্যবস্থাপনার দায় সেবা দাতা প্রতিষ্ঠানের। কাজেই দায় তাদের। বিটিআরসির কাজ কেবল রেগুবলেট করা।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!