শামীম ওসমানকে আরও দুর্বল করে দিলো আওয়ামী লীগ!

0

সময় এখন ডেস্ক:

ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের পর এবার শ্রমিক লীগের নারায়ণগঞ্জ মহানগর কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে। বিলুপ্ত কমিটির নেতারা বেশির ভাগই ক্ষমতাসীন দলের আলোচিত নেতা এ কে এম শামীম ওসমানের অনুসারী ছিলেন, যারা সিটি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীর পক্ষে আন্তরিক ছিলেন না বলে অভিযোগ আছে।

আওয়ামী লীগের নির্দেশক্রমেই ক্ষমতাসীন দলের সহযোগী সংগঠনটির নারায়ণগঞ্জ মহানগর কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে বলে সোমবার নিশ্চিত করেছেন শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক কে এম আযম খসরু।

এর কারণ কী- এই প্রশ্নে তিনি বলেন, আপনারা তো সাংবাদিক, বোঝেন তো কী কারণে বিলুপ্ত হতে পারে। এর বেশি কিছু আমি বলতে পারব না।

বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি আলমগীর কবির বকুল শামীম ওসমানের ঘনিষ্ঠ হিসেবেই পরিচিত। তাকে আইভীর পক্ষে সক্রিয় দেখা যায়নি। কেন্দ্রীয় নেতারা সমাবেশ করলেই কেবল তাদের দেখা গেছে সেখানে।

সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান মুন্না নিজে ছিলেন কাউন্সিলর প্রার্থী। ১৮ নম্বর ওয়ার্ড থেকে নির্বাচন করে তিনি ভোটে জিতেছেন। তবে তিনিও নিজের প্রচার নিয়ে ছিলেন ব্যস্ত। আইভীর পক্ষে সেভাবে ভোট চাননি বলে অভিযোগ আছে।

মুন্নাকে কল করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করে প্রশ্ন শুনে কেটে দেন।

আগের দিন বন্দরনগরীতে ভোটে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর জয়ের দিন আওয়ামী লীগের আরেক সহযোগী সংগঠন স্বেচ্ছাসেবক লীগের নারায়ণগঞ্জ জেলা, মহানগর, থানা ও সব ওয়ার্ড কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়।

এক আদেশে ২৭টি কমিটি বিলুপ্ত করা হলেও এর কোনো কারণ ব্যাখ্যা করা হয়নি।

মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতারা ছিলেন শামীম ওসমানের অনুসারী। তবে জেলা কমিটির সভাপতি সেলিনা হায়াৎ আইভীর খালু হলেও সেই কমিটিতে শামীম ওসমানের অনুসারীও কম ছিলেন না। এই সংগঠনের নেতা-কর্মীদেরও সেভাবে ভোটের প্রচারে দেখা যায়নি।

ভোটের প্রচার চলাকালে ৮ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ ও সাধারণ সম্পাদক হাসনাত রহমান বিন্দুর নেতৃত্বে কমিটি বিলুপ্ত করার আদেশ আসে। এই দুই নেতাও শামীম ওসমানের অনুসারী ছিলেন।

ছাত্রলীগের কমিটির নেতারা ভোটের প্রচার চলাকালে আইভীর পক্ষে নামেননি বলে অভিযোগ ছিল। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নারায়ণগঞ্জে গিয়ে সেখানেই মহানগর কমিটি বিলোপের কথা জানানো হয়।

পরদিন রিয়াদের বাসায় যায় ‍পুলিশ। এরপর রিয়াদ কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে ভোটের প্রচারে নামেন। তবে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতারা কেউ মাঠে না নামলেও মহানগর কমিটির আগের নেতাদেরকেও মাঠে দেখা যায়নি।

নারায়ণগঞ্জ সিটিতে ৩টি নির্বাচনেই সবচেয়ে বেশি আলোচনায় এসেছে আইভী- শামীমের দ্বন্দ্ব। এই দুই নেতার বাবা যথাক্রমে আলী আহম্মেদ চুনকা ও আবুল খায়ের মোহাম্মদ শামসুজ্জোহার মধ্যকার বিরোধ তারা বয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।

২০১১ সালে আইভী ও শামীম পরস্পরের বিরুদ্ধে লড়াই করেন। শামীমকে ১ লাখের বেশি ভোটে হারিয়ে আইভী দলের ভেতর তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বীর অবস্থান অনেকটাই দুর্বল করে দেন।

২০১৬ সালের নির্বাচনে শামীম ওসমানের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। তিনি আসলে আইভীর পরাজয় চান- এমন কথা ওঠার পর সংবাদ সম্মেলনে এসে আইভীকে ‘বোন’ আখ্যা দিয়ে বলেন, তিনি তার বোনের জয় ছাড়া কিছু চান না।

এবারও একই ধরনের কথা ওঠার পর শামীম ওসমান আগের মতোই সংবাদ সম্মেলনে এসে নৌকার প্রতি তার সমর্থন ঘোষণা করেন। তবে প্রার্থী নিয়ে যে আপত্তি আছে, সেটি তার কথাতেই প্রকাশ পায়।

তার বক্তব্যটা ছিল এমন: ‘নারায়ণগঞ্জ নৌকার ঘাঁটি, শেখ হাসিনার ঘাঁটি। এখানে অন্য কোনো খেলা খেলার চেষ্টা করবেন না। কে প্রার্থী, হু কেয়ার্স? প্রার্থী আমগাছ হোক, আর কলাগাছ হোক। সব সময় নৌকার প্রতি সাপোর্ট।’

আইভী এবার ভোটে জয় পাওয়ার পর তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী তৈমুর আলম খন্দকারের বাসায় মিষ্টি ও ফুল নিয়ে গেলেও শামীম ওসমানের বাসায় যাননি।

শামীম ভোট দিয়ে বলেন, নৌকার পরাজয় হতে পারে না। তবে ফলাফল প্রকাশের পর তার আর কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। নিউজবাংলা।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!