এরদোয়ানকে ‘ষাঁড়’ বলায় শীর্ষ নারী সাংবাদিকের জেল!

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানকে নিয়ে অপমানজনক মন্তব্য করায় দেশটির সুপরিচিত এক সাংবাদিককে আটক করেছে পুলিশ।

আটককৃত নারী সাংবাদিকের নাম সেদাফ কাবাস। শনিবার এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান।

শনিবার রাত ২টার দিকে সাংবাদিক কাবাসকে তার বাসা থেকে আটক করে পুলিশ স্টেশনে নিয়ে যাওয়া হয়। তাকে আদালতে বিচারের মুখোমুখি করার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।

প্রেসিডেন্টকে অপমান করায় তুরস্কের আইনে ১ থেকে ৪ বছরের জেল হতে পারে তার।

সম্প্রতি টেলিভিশন এবং টুইটারে প্রেসিডেন্ট এরদোগানকে কটাক্ষ করে মন্তব্য করেন সাংবাদিক কাবাস। তিনি বলেন, মুকুট পরা মাথা (রাষ্ট্রপ্রধান) বুদ্ধিমান হয়, কিন্তু আমরা দেখছি তা সত্য নয়।

সাংবাদিক কাবাস আরও বলেন, ষাঁড় রাজপ্রাসাদে ঢুকলেই সে রাজা হয়ে যায় না। ওই প্রাসাদ গোয়ালঘরে পরিণত হয়।

তার এমন মন্তব্যে খেপেছে এরদোগান প্রশাসন। এ নিয়ে প্রেসিডেন্ট এরদোগানের মুখপাত্র এবং দেশটির যোগাযোগ দপ্তরের প্রধান ফাহরেতিন আলতুন বলেছেন, প্রেসিডেন্ট কার্যালয়ের সম্মান আমাদের দেশের সম্মান। আমাদের প্রেসিডেন্ট এবং তার কার্যালয়ের বিরুদ্ধে অপমানজনক মন্তব্যের কঠোর নিন্দা জানাচ্ছি।

একজন শীর্ষস্থানীয় সাংবাদিকের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের কঠোর অবস্থান নিয়ে তুরস্কের মানবাধিকার সংগঠন বা সংবাদকর্মীদের ফোরামগুলো কোনো বিবৃতি দেয়নি এখন পর্যন্ত।

ইউক্রেনে বিপুল সামরিক সরঞ্জাম পাঠালো যুক্তরাষ্ট্র

রাশিয়ার সঙ্গে ইউক্রেনের চরম উত্তেজনার মধ্যেই কিয়েভে সামরিক সহায়তা পাঠালো যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন দূতাবাসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ২০ কোটি মার্কিন ডলারের নিরাপত্তা সহায়তার প্রথম চালান পৌঁছেছে ইউক্রেনে।

রবিবার (২৩ জানুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এ খবর প্রকাশ করেছে সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা।

রাশিয়া তার প্রতিবেশী দেশ ইউক্রেনে যেকোনও মুহূর্তে একটা হামলা চালিয়ে বসতে পারে। ইউক্রেন সীমান্তে লক্ষাধিক রুশ সেনা অবস্থান করছে। এ নিয়ে দেশটির উৎকণ্ঠার শেষ নেই।

কিছু একটা করতে যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রপ্রধানদের কাছে সহযোগিতা চাইছে কিয়েভ। মস্কো যদি ইউক্রেনে হামলা করেই বসে এরজন্য পুতিনকে চরম মূল্য দিতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়ে আসছে পশ্চিমাদেশগুলো।

এমন উত্তেজনার মধ্যেই নিরাপত্তা সহায়তা প্যাকেজের প্রথম চালান পাঠালো বাইডেন প্রশাসন।

কিয়েভে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাস শনিবার ফেসবুকে বিবৃতিতে জানিয়েছে, রুশ আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ইউক্রেনের সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতা রক্ষার্থে দেশটির সশস্ত্র বাহিনীকে এই ধরনের সহায়তা যুক্তরাষ্ট্র ভবিষ্যতেও অবহ্যাত রাখবে।

এমন বিপদে সামরিক সহায়তা পেয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে ধন্যবাদ জানাতে ভোলেননি ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী।

এদিকে, এস্তোনিয়া, লাটভিয়া এবং লিথুনিয়াও যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি কামান বিধ্বংসী ট্যাংক, যুদ্ধবিমান পাঠাবে বলে জানিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্থনি ব্লিঙ্কেন।

তাদের সহায়তাকে যুক্তরাষ্ট্র পুরোপুরি সমর্থন করে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!