একাত্তরে গণহত্যার দায়ে পাকিস্থানি সেনাবাহিনীর বিচার চায় ভারত

0

সময় এখন ডেস্ক:

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্থানি সেনাবাহিনীর চালানো গণহত্যার বিচার চায় ভারত।

একইসঙ্গে ২০০৮ সালের মুম্বাই হামলার বিচার চেয়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে (ইউএনএসসি) এসব ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি টিএস ত্রিমূর্তি।

এ ধরণের সশস্ত্র সংঘাত মানুষের জীবনে ধ্বংসাত্মক পরিণতি ডেকে আনে, বেসামরিক অবকাঠামোর ক্ষতি করে এবং সশস্ত্র বাহিনীর নিরাপত্তাকে ঝুঁকিপূর্ণ করে তোলে। তাই যারা রাষ্ট্রীয়ভাবে সন্ত্রাসবাদের পৃষ্ঠপোষকতা করে তাদের কর্মকাণ্ডের সমালচনা করে দেশটি।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) শুরু হয়েছে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক। এবারের বৈঠকের আলোচ্য বিষয় ‘সশস্ত্র সংঘাতকালে বেসামরিক মানুষের সুরক্ষা : বড় শহরসমূহে যুদ্ধ ও নগরাঞ্চলে বসবাসরত বেসামরিক মানুষের সুরক্ষা।’

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য ইকোনমিক টাইমস জানায়, বৈঠকে মুম্বাইতে চালানো সন্ত্রাসী হামলার কথাও ইউএনএসসিকে স্মরণ করিয়ে দেয় ভারত। ২০০৮ সালের নভেম্বর মাসে মুম্বাই হামলায় ১৫ জনের বেশি বিদেশি নাগরিক এবং ১৬৬ জন বেসামরিক ভারতীয় নাগরিক নিহত হন।

বৈঠকে জাতিসংঘে নিযুক্ত ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি টিএস ত্রিমূর্তি বলেন, আমরা ইতোমধ্যেই শহুরে যুদ্ধ এবং শহরে সন্ত্রাসী হামলার প্রভাব প্রত্যক্ষ করছি। জাতিসংঘ মহাসচিবের দপ্তর থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শহরাঞ্চলে সংঘাতে ৫ কোটির বেশি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বিস্ফোরক অস্ত্রের ব্যবহার, বিশেষ করে যেগুলো ব্যাপক অঞ্চল ক্ষতিগ্রস্ত করে, এগুলোর নির্বিচার ব্যবহার বেড়েছে। আফগানিস্তান, লিবিয়া, সিরিয়া এবং ইয়েমেনের মানুষ নগর সংঘাতের কারণে সৃষ্ট ধ্বংসলীলা প্রত্যক্ষ করেছে।

এছাড়া আরও কিছু দেশ রয়েছে যারা অতীতে বেসামরিক জনসংখ্যার সুরক্ষার জন্য যথাযথ বিবেচনা ছাড়াই বা ইচ্ছাকৃতভাবে বেসামরিক লোকদের লক্ষ্যবস্তু হয়েছিল, যেমন ১৯৭১ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্থানে গণহত্যা করা হয়েছিল।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালরাতে সাধারণ মানুষের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছিল পাকিস্থান সেনাবাহিনী। পরবর্তীতে মুক্তিযুদ্ধে ৯ মাসে পাকিস্থানি বাহিনী ও তাদের দোসরদের হাতে শহিদ হয়েছিলেন ৩০ লাখ মানুষ। সেই সাথে নিপীড়িত হয়েছিল ৬-৮ লক্ষ নারী। এসব ঘটনায় আজ পর্যন্ত বাংলাদেশের কাছে ক্ষমা চায়নি পাকিস্থান।

একাত্তরে পাকিস্থান সেনাবাহিনীর দ্বারা সংঘটিত গণহত্যার বিচার চেয়েছে ভারত জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!