জেনে নিন যাদুকরী ফল হরিতকীর আশ্চর্য গুণাগুণ!

0

লাইফ স্টাইল ডেস্ক:

হরিতকী গাছের ফুল দেখতে খুবই সুন্দর, আর ফল এক মহৌষধ। গ্রীষ্ম ও বর্ষার বৃষ্টিভেজা বনে জঙ্গলের গাছে গাছে হরিতকীর ফুল শোভা পায়।

বর্তমান প্রজন্মের অনেকেই এই মহামূল্যবান হরিতকীর ফুল চেনে না। চেনে না হরিতকী, জানে না এর গুণাগুণ। দেশের ঔ-ষধি ফলসমূহের মধ্যে হরিতকী হচ্ছে একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ। বাংলাদেশ ও ভারত এর আদি জন্মভূমি।

আয়ুর্বেদ চিকিৎসকদের মতে, হরিতকী হচ্ছে সর্বরোগের ও-ষুধ। সকালে হরিতকী ভেজানো পানি খেলে অনেক রোগ থেকে মানুষ বেঁচে থাকতে পারে। হরিতকী, বহেরা ও আমলকীর একত্র মিশ্রনকে বলা হয় ‘ত্রিফলা’।

গ্রামের মানুষ যুগ যুগের পরিচিত এই ত্রিফলার পানি পান করে নিজেদের রোগ-বালাই থেকে মুক্ত রাখতেন।

প্রচলিত নাম: হরিতকী
আয়ুবের্দিক নাম: হরিতকী
সংস্কৃত নাম: অভয়া
বৈজ্ঞানিক নাম: terminalia chebula
পরিবার: Combretaceae

পরিচিতি: হরিতকী বহুল পরিচিত পাতা ঝরা বৃক্ষ। গাছ ৭০ থেকে ৮০ ফুট উঁচু হয়। পাতা ৩ থেকে ৪ ইঞ্চি লম্বা আকারে অনেকটা জামরুলের পাতার মত ছোট। ফাগুন ও চৈত্র মাসে ঝরে যায় এবং অল্প দিনের মধ্যে নতুন পাতা হয়।

ফুল সাদা বা পীত বর্ণের উগ্র গন্ধ বিশিষ্ট। ফল ১ থেকে ১.৫ ইঞ্চি লম্বা ৫টি উন্নত শিরা বিশিষ্ট। ফল আপনা আপনি ঝরে পড়ে। ফল একটি মাত্র বীজ বিশিষ্ট বিভিন্ন আকৃতির হয়। গ্রীষ্মকালে ফুল ও শীত কালে ফল হয়।

প্রাপ্তিস্থান: হরিতকী বাংলাদেশ সহ উপমহাদেশের বিভিন্ন পাহাড়ী অঞ্চলে জন্মে।

ব্যবহার্য অংশ: ফলের খোসা বা ফল ত্বক। ফল হলুদ বা কালো বর্ণের হয়। ইহা কষ্টি স্বাদমুক্ত ও মিষ্টি গন্ধযুক্ত। অধিক সুস্থ থাকার জন্য একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের দিনে ১০ গ্রাম হরিতকী ফল খাওয়া দরকার।

তবে কখনোই মাত্রার বেশি খাওয়া যাবে না। অতিরিক্ত মাত্রায় হরিতকী সেবনে অন্ত্রনালীর ক্ষ-তি হয়। ৭ ধরনের হরিতকীর মধ্যে ‘বিজয়া’ জাতটি বেশি গুণ সমৃদ্ধ।

বিবিধ ব্যবহার:

হরিতকী অ্যামাইনো এসিড, ফ্রুক্টোজ, ট্যানিন, অ্যানথ্রাইকুইনোন, বিটা সাইটোস্টেবল সমৃদ্ধ।
এটি দেহের রক্ত পরিষ্কারক।
যকৃত, পাকস্থলী ও মস্তিষ্কের শক্তি বৃদ্ধি করে।
যৌ-ন শক্তি বৃদ্ধি করে।
হাঁপানি রোগ দূর করতে কার্যকরী।

পুরাতন ক্ষ-ত নিরাময় ও চর্মরোগের উপকারী।
ব্রণ নাশক।
চোখের শক্তি বৃদ্ধি করে এবং চক্ষু রোগ নির্মূলে কার্যকর।
গ-র্ভপাত রোধ করতে সাহায্য করে।
পিত্তশূল দূর করার কাজে বহুল ব্যবহৃত।

রক্তচাপ ও অন্ত্রের খিঁচুনি কমায় এবং প্রতিরোধের কাজ করে।
হৃদপিণ্ড ও অন্ত্রের অনিয়ম দূর করে। হার্টবার্ণে দ্রুত কাজ করে।
স্নায়ুবিক দুর্বলতা, কোষ্ঠকাঠিন্য ও অবসাদ নিরাময় করে।
দেহের অতিরিক্ত চর্বি কমাতে সাহায্য করে।
এটি পরজীবীনাশক হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

বিভিন্ন ধরনের এলার্জি দূর করে।
চুল ও ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে।
বিভিন্ন ধরনের বাত রোগ, কফ, কাশিসহ গলা ও দাঁতের ব্যথায় বিশেষ উপকার করে।
ত্রিফলাতে হরিতকীর স্থান সবার ওপরে।

এর ছাল, শিকড় ও পাতা অনেক ধরনের ও-ষুধি কাজে ব্যবহৃত হয়।
প্রচুর পরিমানে ট্যানিন আছে বিধায় লেখার কালি, শ্যাম্পু ও চুলের কলপ তৈরীতে ব্যবহৃত হয়।
হরিতকী গাছের কাঠ আসবাবপত্র কৃষি যন্ত্রপাতি ও অন্যান্য কাজে ব্যবহার করা যায়।

ত্রিফলার উল্লেখ্যযোগ্য উপদান হচ্ছে হরিতকী। দেশীয় চিকিৎসায় বহুল পরিমানে হরিতকী ব্যবহৃত হয়। এখানে ইউনানী, আয়ুর্বেদিক ঔ-ষুধ যেমন মোরব্বা- য়ে- হালিলা, জাওয়ারিশ শাহী, হরিতকী খন্ড প্রভৃৃতি ঔ-ষুধ উল্লেখযোগ্য।

পরিকল্পিতভাবে চাষাবাদ করা হলে হরিতকী ও-ষুধ শিল্পে আরও অগ্রণী ভূমিকা রাখতে পারবে এবং হরিতকী রপ্তানী করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করাও সম্ভব হবে।

শেয়ার করুন !
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply