তালাক দেয়ায় স্ত্রীর ন’গ্ন ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দিলেন স্বামী

0

সময় এখন ডেস্ক:

আশুলিয়ায় তালাক দেয়ায় স্ত্রীর ন’গ্ন ছবি বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছেন স্বামী। এমন অভিযোগে বখাটে ওই স্বামীকে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার ভোরে আশুলিয়া থানা পুলিশ আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে আসামির অবস্থান শনাক্তের পর তাকে বগুড়া সদর থানা এলাকা থেকে আটক করেছে।

আটক তানভীর হোসেন নাঈম (২৫) বগুড়া জেলার সদর থানার ফুলবাড়ী গ্রামের আবু তালেবের ছেলে।

আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রাম কৃষ্ণ দাস জানান, ২০১৬ সালে তানভীরের সঙ্গে ওই নারীর প্রেমের সম্পর্কের মাধ্যমে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই তাদের মধ্যে বনিবনা না হওয়ায় চলতি বছরের আগস্ট মাসের ৯ তারিখ তাকে তালাক দেয় স্ত্রী।

কিন্তু তালাক দেয়ার পর থেকেই আগের ধারণকৃত বিভিন্ন ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে স্ত্রী ও তার পরিবারকে ব্ল্যাক’মেইল করতে থাকে তানভীর। এই ঘটনায় ওই নারী বাদী হয়ে ৩০ আগস্ট আশুলিয়া থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা (৭১ নং) দায়ের করেন।

তিনি আরও জানান, আটকের সময় তার কাছ থেকে ২টি মুঠোফোন, ১টি পেনড্রাইভ ও ১টি মেমোরি কার্ড জব্দ করা হয়। এছাড়া আসামিকে জিজ্ঞা’সাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে বুধবার সকালে আদালতে পাঠানো হবে।

আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ রিজাউল হক দিপু বলেন, থানায় অভিযোগের পর থেকেই মুঠোফোনে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে আসামির অবস্থান শনাক্ত করে মঙ্গলবার ভোরে বগুড়া সদর থানা পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে তাকে আটক করা হয়েছে।

গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

পাবনার সাইলা আক্তার (১৯) নামে এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে ঈশ্বরদী উপজেলার দাশুড়িয়া ইউনিয়নের হাটপাড়া এলাকায় এই ঘটনা ঘটেছে।

ঘটনার পর জিজ্ঞা’সাবাদের জন্য তার স্বামী আবির হোসেন ও শাশুড়ি রিপা খাতুনকে পুলিশ আটক করে থানায় নিয়ে গেছে।

বাবা নান্টু সরদার অভিযোগ করেন, সাইলাকে শ্বশুরবাড়ির লোকজনই হ’ত্যা করেছে।

তিনি বলেন, বিয়ের পর থেকেই সাইলাকে শারীরিক নি’র্যাতন করা হতো। এ নিয়ে কয়েকবার গ্রাম্য সালিশ হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) রাতে অচেতন অবস্থায় সাইলাকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃ’ত ঘোষণা করেন।

হাসপাতালের জরুর বিভাগের চিকিৎসক জানান, হাসপাতালে আনার আগেই সাইলার মৃত্যু হয়েছে। তার গলায় ফাঁ’সের চিহ্ন রয়েছে।

ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বাহাউদ্দীন ফারুকী বলেন, ‘ঘটনাটি হ’ত্যা, নাকি আত্মহ’ত্যা- তা বলা যাচ্ছে না। জিজ্ঞা’সাবাদের জন্য সাইলার স্বামী আবির হোসেন ও শাশুড়ি রিপা খাতুনকে থানায় আনা হয়েছে।’

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!