ক্যাসিনোর ভেতরের চেহারা দেখে সবার চক্ষু চরকগাছ!

0

সময় এখন ডেস্ক:

বিকেল ৩টার দিকে ক্লাব পাড়ায় খবর ছড়িয়ে পড়ে, পুলিশ ঢুকেছে আরামবাগ, দিলকুশা, ভিক্টোরিয়া ও মোহামেডান ক্লাবে। কেন ঢুকেছে? এ প্রশ্নের উত্তর সবারই জানা। পুলিশের মতিঝিল জোনের ডিসি আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে একযোগে এ ৪টি ক্লাবে অভিযান চালিয়ে পুলিশ ক্যাসিনো খেলার সরঞ্জামাদি, মদ, নগদ টাকা, ওয়াকিটকিসহ বিভিন্ন সামগ্রী জব্দ করেছে।

অভিযান চলাকালে পুলিশের মতিঝিল জোনের ডিসি আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘যেসব ক্লাবে ক্যাসিনো জুয়া হয় বলে আমাদের কাছে অভিযোগ আছে, সেগুলোতেই আমরা অভিযান চালাচ্ছি। এটা চলমান প্রক্রিয়া। আমরা এখানে ৪টি ক্লাবে এ অভিযান চালিয়েছি। সকালে গোপীবাগের ব্রাদার্স ইউনিয়নেও আমরা গিয়েছিলাম। তবে সেখানে ক্যাসিনো কিংবা অ’বৈধ কিছু পাওয়া যায়নি।’

ফকিরেরপুল, আরামবাগ ও মতিঝিলের এ ক্লাব পাড়ায় দ্বিতীয় দিনের মতো ক্যাসিনো উচ্ছেদ অভিযান চলাকালীন সেখানে ছিল উৎসুক জনতার ভিড়। গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে অনেক সাধারণ মানুষও ক্যাসিনো খেলার স্থানে গিয়ে পুলিশের অভিযান দেখে।

ক্যাসিনো খেলার পরিবেশ দেখে অনেকের চোখই ছানাবড়া। ‘শুনেছিলাম, ক্যাসিনো নাকি সুন্দর করে সাজানো থাকে। কিন্তু এত সুন্দর তা না দেখলে জানতাম না। তাও তো দেখলাম এলোমেলো অবস্থায়’- ভিক্টোরিয়া ক্লাবের ক্যাসিনো থেকে বেরিয়ে বলছিলেন এক যুবক।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ফকিরেরপুল ইয়ংমেন্স ক্লাব ও ঢাকা ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের ক্যাসিনোতে র‌্যাবের আচমকা অভিযানের পর থেকেই আরামবাগ, দিলকুশা, ভিক্টোরিয়া ও মোহামেডান ক্লাবের ক্যাসিনো ছিল বন্ধ। রোববার পুলিশ বন্ধ ক্যাসিনোর তালা ভেঙে সেখানে উচ্ছেদ অভিযান চালায়।

বন্ধ থাকার কারণে কোনো ক্যাসিনো থেকেই তাৎক্ষণিকভাবে কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। ক্যাসিনো খেলার সরঞ্জামাদি, কিছু মা’দকদ্রব্য এবং ভিক্টোরিয়া ক্লাব থেকে নগদ ১ লাখ টাকা উদ্ধার করতে পেরেছে পুলিশ।

শোনা যায় রাজধানীর বিভিন্ন ধরনের ক্লাবে জুয়া খেলা হয়। তবে কেন স্পোর্টস ক্লাবগুলোতেই বেশি অভিযান হচ্ছে? এমন প্রশ্ন করলে পুলিশের মতিঝিল জোনের ডিসি আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘দেখুন আমরা কিন্তু সবার শেষে খেলাধুলার ক্লাবগুলোতে অভিযান শুরু করেছি। এর আগে আমরা অন্যান্য যে সব ক্লাবে ক্যাসিনো বা অ’বৈধ কার্যকলাপ চলে সেগুলোতে অভিযান চালিয়ে বন্ধ করেছি।’

অ’বৈধ ক্যাসিনো ও জুয়ার বিরু’দ্ধে এ অভিযানে ক্লাবগুলো খেলাধুলাসহ স্বাভাবিক কার্যক্রমে কোনো ব্যাঘাত ঘটবে কিনা জানতে চাইলে পুলিশের এ কর্মকর্তা বলেন, ‘অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা ক্লাবগুলোতে অভিযান চালাচ্ছি। যে কার্যকলাপ অ’বৈধ আমরা শুধু সেগুলোর বিরু’দ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছি।’

শেয়ার করুন !
  • 38
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply