৮৯% মানুষকে সেবা পেতে ঘুষ দিতে হয়: টিআইবি

0

সময় এখন ডেস্ক:

‘ঘুষ না দিলে সেবা পাওয়া যাবে না’- এমনটা মেনে নিয়েছে ৮৯% মানুষ। অর্থাৎ ৮৯% মানুষ ঘুষ-দুর্নীতির শি’কার হয়েছে। আর ঘুষের বিরু’দ্ধে অভিযোগ দিয়ে কোনো ফল পাওয়া যায় না, তাই ঘুষ দেওয়াকে জীবনেরই অংশ বলে মনে করে ৭৫% মানুষ।

অন্যদিকে দেশের ৬০% মানুষের ধারণা শাস্তি দিয়ে সমাজ থেকে দুর্নীতি কমানো যাবে না। তথ্য অধিকার আইন নিয়ে দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) এক গবেষণায় এসব তথ্য উঠে এসেছে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর ধানমণ্ডিতে টিআইবি কার্যালয়ে ‘তথ্য অধিকার আইন ও দুর্নীতি প্র’তিরোধ : আইনের প্রথম দশকের অভিজ্ঞতা ও ভবিষ্যৎ করণীয়’ শীর্ষক এক আলোচনাসভায় গবেষণার তথ্য তুলে ধরা হয়।

টিআইবি জানায়, নানা সেবা পেতে ঘুষ দিয়েছে এমন ১৬ হাজার মানুষকে নিয়ে গবেষণা করে প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। গবেষণায় দেখা যায়, দেশের ৭৫% মানুষই ঘুষকে জীবনের একটা অংশ হিসেবে মেনে নিয়েছে। বাকি ২৫% মানুষ অভিযোগ করলেও ইতিবাচক কোনো ফল পায়নি। তারা মনে করে, অভিযোগ করলে লাভের চেয়ে উল্টো ক্ষ’তিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা বেশি।

গবেষণায় দেখা গেছে, ভিক্টিমদের সিংহভাগই মনে করে, ঘুষ না দিলে সেবা পাওয়া যায় না। তাদের সবচেয়ে বেশি ঘুষ দিতে হয় সরকারি সনদ (জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসপোর্ট, জন্মনিবন্ধন) নিতে।

গবেষণায় দেখা গেছে, লোকজনের কাছ থেকে ৫০% কর্মকর্তা সরাসরি ঘুষ চেয়েছে। ৪০% কর্মকর্তা একটু গোপনে অর্থ দাবি করে। আর বাকি ১০% কর্মকর্তা সেবা পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে অফিসের বাইরে গিয়ে অর্থ দাবি করেছে।

দুর্নীতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের সাজার বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে যারা সেবা পেতে ঘুষ দেন তাদের ৬০% জানায়, সাজা দিয়ে দুর্নীতি কমানো যাবে না। আইন করলে হবে না, এর প্রয়োগ যথাযথ থাকা দরকার। আর ২০% মানুষ মনে করে, যারা সাজা দেবে তারাই দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত। ১৫% মনে করে, সাজার দেখা মিলবে না দুর্নীতির কারণে। আর ৫% মনে করে, দুর্নীতি বিষয়ে সাজা দিতে গেলে ঝামেলা তৈরি হবে আরও বেশি।

আলোচনায় টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, দুর্নীতি কমাতে সামাজিক আন্দোলন তৈরি করতে হবে। সামাজিক আন্দোলন রাজনৈতিক পদক্ষেপের চেয়ে শক্তিশালী। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি শক্তিশালী তথ্য অধিকার আইন জানা ও এ আইনের প্রয়োগ। তথ্য অধিকার আইন যথাযথ বাস্তবায়ন হলে দুর্নীতি কমে আসবে।

আমাদের দেশের তথ্য অধিকার আইন অস্ট্রেলিয়া, অস্ট্রিয়া, জার্মানিসহ আরও অনেক উন্নত রাষ্ট্র থেকে সমৃদ্ধ। বিশ্বের ১২৪টি দেশের র‌্যাংকিংয়ে ২৬তম। আমাদের দেশের তথ্য অধিকার সমৃদ্ধ হওয়া সত্ত্বেও এর বাস্তবায়ন না হওয়ায় দুর্নীতি বাড়ছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

আলোচনায় সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেন, তথ্য অধিকার আইনে বেসরকারি খাতে তথ্য পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। এটি এ আইনের একটি বড় দুর্বলতা। তার চেয়ে বড় দুর্বলতা রাজনৈতিক দলগুলোর তথ্য পাওয়ার ক্ষেত্রে জটিলতা। কারণ দেশের কোনো মেগা দুর্নীতি রাজনৈতিক দলের ছত্রছায়া ছাড়া সম্ভব নয়।

তিনি আরও বলেন, তথ্য পাওয়ার ক্ষেত্রে বড় বাধা তথ্য কমিশন। মানুষের তথ্য পাওয়ার ক্ষেত্রে এই কমিশন উল্টো নানাভাবে হয়রা’নি করে থাকে।

শেয়ার করুন !
  • 23
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply