রঙ ফর্সাকারী ক্রিমে ক্ষতিকর উপাদান, যুক্তরাজ্যে সতর্কতা

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

যুক্তরাজ্যের ভোক্তাদেরকে রঙ ফর্সাকারী ক্রিম ব্যবহারে সতকর্তা জারি করা হয়েছে। সতর্কবার্তায় বলা হচ্ছে, যেকোনো মূল্যে এ ধরনের পণ্য ব্যবহার করা থেকে সবাইকে বিরত থাকতে হবে। বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ খবর জানানো হয়েছে।

যুক্তরাজ্যের স্থানীয় সরকার সংগঠনের (এলজিএ) সতর্কবার্তায় বলা হচ্ছে, রঙ ফর্সাকারী ক্রিমে থাকা উপাদান ত্বকের উপরিভাগের একটি স্তরকে ধ্বংস করে দিতে পারে। সম্প্রতি দেশটিতে বাণিজ্য মান নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তাদের হাতে এ ধরনের কিছু পণ্য জব্দ হওয়ার পর এই হুঁ’শিয়ারি দেয়া হয়।

এতে বলা হয়, অনেক পণ্যে ক্ষ’তিকর রাসায়নিক উপাদান হাইড্রোকুইনোন থাকে। এছাড়াও অনেক ক্রিমে মার্কারি বা পারদ থাকার কথাও জানা গেছে। এলজিএ বলছে, কিছু খুচরা ব্যবসায়ী, অনলাইন এবং বাজারের কিছু দোকানীসহ এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ীরা এ ধরনের পণ্য বিক্রি করছে।

বিক্রেতারা সবসময় পণ্যের সঠিক মাত্রা উল্লেখ করেনা, যার কারণে ভোক্তারা স্বাস্থ্য ঝুঁ’কিতে পড়েন। এলজিএ জানিয়েছে, হাইড্রোকুইনোন এমন এক রাসায়নিক যা জৈবিক রঙ পরিবর্তনের এক ধরনের উপাদান বা পেইন্ট স্ট্রিপার। এই রাসায়নিক মানুষের ত্বকের একটি স্তরকে অপসারণ করে দিতে পারে।

এর ফলে ত্বকের ক্যান্সার, যকৃত এবং কিডনির মা’রাত্মক ঝুঁকি তৈরি হয়। পারদ থেকেও একই ধরনের প্রা’ণঘাতী স্বাস্থ্য ঝুঁ’কি তৈরির আশ’ঙ্কা থাকে।

চিকিৎসকের অনুমোদন ছাড়া হাইড্রোকুইনোন, স্টেরয়েড বা পারদ রয়েছে এমন ক্রিম তাদের মা’রাত্মক ক্ষ’তিকর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে যুক্তরাজ্যে নি’ষিদ্ধ করা হয়েছে।

এলজিএর নিরাপদ ও শক্তিশালী কমিউনিটি বোর্ডের চেয়ারম্যান সিমন ব্ল্যাকবার্ন বলেন, নি’ষিদ্ধ পণ্যসমৃদ্ধ ত্বকের ক্রিম খুবই বিপজ্জনক এবং এগুলো স্বাস্থ্যের মা’রাত্মক ক্ষ’তি করতে পারে, সারা জীবনের জন্য ক্ষ’তির কারণ হতে পারে এমনকি মৃ’ত্যুও হতে পরে। তাই এগুলোকে যেকোনো মূল্যে এড়িয়ে চলা উচিত।

তিনি জানান, ভোক্তাদের সব সময় তাদের ক্রিমে কী উপাদান রয়েছে তা খতিয়ে দেখা উচিত। খুব কম দাম হলে আরও বেশি সচেতন হওয়া উচিত কারণ সেগুলো নকল এবং ক্ষ’তিকর হতে পারে। সেইসঙ্গে হাইড্রোকুইনোন রয়েছে এমন পণ্য ব্যবহার করা উচিত নয়।

চেয়ারম্যান সিমন ব্ল্যাকবার্ন বলেন, পণ্যে যদি কোন ধরনের উপাদানের উল্লেখ না থাকে তাহলে সেটি ব্যবহার করা উচিত নয়। যেসব অ’সাধু ব্যবসায়ী এসব নি’ষিদ্ধ পণ্য বিক্রি করে তাদের খুঁজে বের করতে কাজ করছে কাউন্সিল।

এসব ব্যবসায়ীদের বিষয়ে তথ্য দিতে জনগণকে আহ্বান জানানো হয়েছে যাতে করে টাউন হল প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পারে। যাতে করে মানুষ এ ধরনের পণ্য কেনা থেকে বিরত রাখা যায় যা তাদের চেহারায় স্থায়ী ক্ষ’তির ঝুঁকি তৈরি করে।

ব্রিটিশ স্কিন ফাউন্ডেশনের মুখপাত্র লিসা বিকারস্টাফে বলেন, বছরের পর বছর ধরে অ’বৈধ রঙ ফর্সাকারী ক্রিমের ইস্যুটি চলেই আসছে। কাউন্টার কিংবা অনলাইনে অ’বৈধ উপায়ে এসব ক্রিম বিক্রির কারণেই এই সমস্যা বেড়ে চলেছে কিনা তা নিশ্চিত হওয়া বেশ কঠিন।

তার মতে, এসব কসমেটিকসের উপাদান মা’রাত্মক স্বাস্থ্য সমস্যা তৈরি করতে পারে এবং ব্রিটিশ স্কিন ফাউন্ডেশন এগুলো ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে কঠোর নির্দেশ দিয়ে থাকে। ত্বকের রঙ নিয়ে অভিযোগ থাকলে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিন। তারাই আপনাকে সঠিক নির্দেশনা দিতে পারবেন।

শেয়ার করুন !
  • 244
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!