রোহিঙ্গাদের ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে প্রাচীর নির্মাণে আপত্তি এনজিওদের

0

কক্সবাজার প্রতিনিধি:

দেশব্যাপী রোহিঙ্গাদের ছড়িয়ে পড়া এবং নানাবিধ অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়া ঠেকাতে কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শিবিরগুলো ঘিরে কাঁটাতারের বেড়া ও গার্ড টাওয়ার নির্মাণ পরিকল্পনায় আপত্তি জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ)।

মঙ্গলবার (১ অক্টোবর) এক বিবৃতিতে সংস্থাটি উল্লেখ করে, রোহিঙ্গা শিবিরের বাসিন্দাদের নিরাপত্তা দেয়ার দায়িত্ব কর্তৃপক্ষের হলেও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে গিয়ে তাদের মৌলিক অধিকার ও মানবিক প্রয়োজন অ’স্বীকার করা যাবে না। বাংলাদেশ সরকারের প্রস্তাবিত এই পরিকল্পনা আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন অনুযায়ী চলাফেরার স্বাধীনতা নিয়ন্ত্রণের প্রয়োজনীয়তা ও প্রাসঙ্গিকতার সঙ্গে অ’সামঞ্জস্যপূর্ণ।

মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যে হ’ত্যা, ধ’র্ষণ, নির্যা’তন থেকে বাঁচতে সীমান্ত পেরিয়ে ২০১৭ সালের আগস্টে বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে থাকে রোহিঙ্গারা। নির্যা’তনের মুখে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা প্রায় ১২ লাখ রোহিঙ্গা বর্তমানে কক্সবাজারের বিভিন্ন শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নিয়ে অবস্থান করছে।

গত ২৯ সেপ্টেম্বর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানান, এসব শিবির ঘিরে কাঁটাতারের বেড়া ও গার্ড টাওয়ার নির্মাণের পরিকল্পনা করছে সরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ নির্দেশে এই পরিকল্পনা করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

গতকাল এক বিবৃতিতে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের দক্ষিণ এশিয়া পরিচালক ব্র্যাড অ্যাডামস বলেন, রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশের সীমান্ত খুলে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু এখন মনে হচ্ছে তিনি শিবিরগুলোকে কার্যত উন্মুক্ত কারা’গার বানাতে চাইছেন। শরণার্থীদের বাইরের বিশ্ব থেকে আলাদা করে বাংলাদেশ সরকার তাদের অর্জিত বৈশ্বিক সুনামকে ঝুঁ’কিতে ফেলে দিচ্ছে।

সংস্থাটির দাবি, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিরাপত্তার সুরক্ষা দেয়ার পরিবর্তে তাদের মৌলিক মানবাধিকার হিসেবে চলাফেরার স্বাধীনতাকে অ’স্বীকার করা হচ্ছে। এছাড়া এর ফলে জরুরি পরিস্থিতিতে শিবির থেকে বাইরে বের হওয়া বা জরুরি চিকিৎসাসেবা ও অন্যান্য মানবিকসেবা পাওয়া থেকে ব’ঞ্চিত হবে তারা।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়ার পর থেকে রোহিঙ্গারা গোপনে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে বাংলাদেশিদের সাথে মিশে যাওয়া, অ’বৈধ উপায়ে বাংলাদেশি নাগরিকত্বের সনদ, জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসপোর্ট সংগ্রহ এবং নানাবিধ অপরাধে জড়িয়ে পড়েছে।

এসব কারনে বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোকে নিরাপত্তা বেষ্টনী দিয়ে সুরক্ষিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিন্তু কোনো অজানা কারনে বিদেশি সংস্থাগুলো এই সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারছে না।

শেয়ার করুন !
  • 234
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply