আবরার হ’ত্যা মামলার চার্জশিট শীঘ্রই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

0

সময় এখন ডেস্ক:

বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হ’ত্যা মামলার বিচার কার্যক্রম দ্রুত সম্পন্ন করতে শিগগিরই চার্জশিট দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে একথা জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আশা করি খুব শিগগিরই, খুব স্বল্প সময়ের মধ্যেই এই মামলার পূর্ণাঙ্গ চার্জশিট প্রদান করতে পারব। আমাদের পুলিশ সেই কাজটি করছে। চার্জশিট যাতে নিখুঁত হয়, সবকিছু যাতে নির্ভুল হয়; সেজন্য পুলিশ ইতোমধ্যে কাজ শুরু করছে।

এসময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ করে হলগুলোতে তল্লাশি চালানো হবে। একই সঙ্গে শুধু শুদ্ধি অভিযান নয়, দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সব ধরনের পদক্ষেপ নেবে সরকার।

তিনি বলেন, বুয়েটে আপনারা নৃশং’স হ’ত্যাকাণ্ড দেখেছেন। এটা কারো কাম্য নয়। কেন এই হ’ত্যাকাণ্ড, কী উদ্দেশ্য ছিল সবকিছু এখন তদন্ত করা হচ্ছে।

আপনারা ইতোমধ্যে শুনেছেন যারা যারা এই হ’ত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ছিল কিংবা যারা যারা এই হ’ত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন, আমরা ভিডিও ফুটেজ দেখে তাদের শনাক্ত করেছি। আমরা ১৪ জনকে ইতোমধ্যে ধরেছি। তারপর আরও যদি কেউ জড়িত থাকেন। সবাইকে আমরা ধরব।

আবরায় হ’ত্যায় জড়িত থাকার সন্দেহে আটক বুয়েট ছাত্রলীগের আইন বিষয়ক উপ-সম্পাদক অমিত সাহার বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, এই হ’ত্যাকাণ্ডে অমিত জড়িত কিনা তদন্তের পর বলা যাবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, আমি মনে করি পুলিশ যথাসময়ে তাদেরকে (আবরার হ’ত্যাকারী) অ্যারেস্ট করতে সক্ষম হয়েছেন। ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে হল থেকে তারা বেরুতে পারেনি, এর আগেই তারা ধরা পড়েছে।

প্রসঙ্গত, আবরার হ’ত্যা মামলায় প্রাপ্ত ভিডিও ফুটেজ দেখে এখন পর্যন্ত ১৮ জনকে খু’নের সঙ্গে জড়িত বলে চিহ্নিত করা গেছে।

চিহ্নিতরা হলেন- মেহেদী হাসান (কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ১৩তম ব্যাচ), মুহতাসিম ফুয়াদ (১৪তম ব্যাচ, কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ), অনীক সরকার (কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ১৫তম ব্যাচ), মেহেদী হাসান রবিন (কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৫তম ব্যাচ), ইফতি মোশারফ হোসেন (বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৬তম ব্যাচ), মনিরুজ্জামান মনির (পানিসম্পদ বিভাগ, ১৬তম ব্যাচ),

মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন (মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং, ১৫তম ব্যাচ), মাজেদুল ইসলাম (এমএমই বিভাগ, ১৭তম ব্যাচ), মোজাহিদুল (ইইই বিভাগ, ১৬তম ব্যাচ), তানভীর আহম্মেদ (এমই বিভাগ, ১৬তম ব্যাচ), হোসেন মোহাম্মদ তোহা (এমই বিভাগ, ১৭তম ব্যাচ), জিসান (ইইই বিভাগ, ১৬তম ব্যাচ), আকাশ (কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, ১৬তম ব্যাচ),

শামীম বিল্লাহ (মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, ১৭তম ব্যাচ), শাদাত (এমই বিভাগ, ১৭তম ব্যাচ), তানীম (কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, ১৭তম ব্যাচ), মোর্শেদ (এমই বিভাগ, ১৭তম ব্যাচ) এবং মোয়াজ মনতাসির আল জেমি (এমআই বিভাগ)।

শেয়ার করুন !
  • 607
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!