ট্রাফিক সিগনাল মেনে দাঁড়িয়ে আছে গরু! ভাইরাল ভিডিও

0

বিনোদন ডেস্ক:

রাস্তায় বেরিয়ে যদি ট্রাফিক সিগনালে আটকে যেতে হয়, কারই বা ভাল লাগে। এমনও দেখা যায়, আশেপাশে যদি ট্রাফিক পুলিশ না থাকে, তবে কেউ কেউ লাল বাতির মাঝেই নিয়ম ভে’ঙে গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে যান। মানুষ না মানলেও, মানুষের তৈরি নিয়ম যেভাবে একটি গরু মানল, তা দেখে অবাক নেটিজেনরা।

সম্প্রতি বলিউড অভিনেত্রী প্রীতি জিনতা একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

সেখানে দেখা যাচ্ছে, লাল বাতি জ্বলায় ট্রাফিক সিগনালে দাঁড়িয়ে রয়েছে অনেকগুলো গাড়ি ও বাইক। আর তাদের মাঝেই একটি গরু একদম নিয়ম মেনে নির্দিষ্ট লাইন থেকে দূরত্ব বজায় রেখে দাঁড়িয়ে রয়েছে।

প্রীতি জিনতার ভেরিফায়েড টুইটার হ্যান্ডলে ৬ অক্টোবর পোস্ট হয়েছে ৯ সেকেন্ডের ভিডিওটি। ইতোমধ্যেই ভিডিওটি প্রায় ৫৭ হাজার বার দেখা হয়েছে। সেই সঙ্গে চলছে লাইক, কমেন্টও শেয়ার।

প্রীতি জিনতার এই টুইট দেখে কেউ বলছেন, এই কারণেই পশুদের আচরণ কখনও কখনও মানুষের থেকেও ভাল হয়, আবার কেউ বলছেন, গরুরা অনেক সময়ই মানুষের থেকে বেশি ট্রাফিক নিয়ম সচেতন হয়।

ভিডিওটি:

মুয়াজ্জিনের বুদ্ধিমত্তায় ধরা পড়লো মেছো বাঘ

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে একটি মেছো বাঘ ধরা পড়েছে। উপজেলার ভাড়াউড়া চা বাগানে স্থানীয় মসজিদের মুয়াজ্জিন মো. রজব আলীর (৫৫) পাতানো জালে আটকা পড়ে মেছো বাঘটি।

স্থানীয়রা জানান, ভাড়াউড়া চা বাগান এলাকায় বেশ কিছুদিন ধরে গৃহপালিত হাঁস-মুরগি নিখোঁজ হচ্ছিল। এ কারণে মুয়াজ্জিন রজব আলী তার বাড়িতে জাল দিয়ে একটি ফাঁদ পাতেন। সেই ফাঁদে একটি মেছো বাঘ আটকা পড়ে। সকালে আটক মেছো বাঘটি স্থানীয়দের সহায়তায় বন বিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেব জানান, বনে খাদ্য সংকট দেখা দেয়ায় কিছু কিছু প্রাণী খাদ্যের সন্ধানে মাঝে মধ্যেই লোকালয়ে এসে গৃহপালিত পশু-পাখি নিয়ে যাচ্ছে। এভাবে লোকালয়ে আসায় মাঝে মাঝে তারা মানুষের হাতে ধরা পড়ে মা’রাও যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, ২০০৮ সালে মেছো বাঘকে বিপন্ন প্রজাতির তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। মেছো বাঘ আসলে বাঘরোল বা মেছো বিড়াল নামেও পরিচিত। এটি মাঝারি আকারের বিড়ালগোত্রীয় একধরনের স্তন্যপায়ী বন্যপ্রাণী।

শেয়ার করুন !
  • 50
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply