গণভবন এখন ‘সান্ত্বনা ভবন’-এ পরিণত হয়েছে: রিজভী

0

সময় এখন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বাসভবন গণভবনকে ‘সান্ত্বনা ভবন’ বলে অ্যাখ্যা দিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

শুক্রবার নয়াপল্টনে জাতীয়তাবাদী মৎস্যজীবী দলের বিক্ষো’ভ মিছিল শেষে এক পথসভায় তিনি বলেন, এই অ’বৈধ সরকারের লোকজনের মাধ্যমে কোনো হ’ত্যাকাণ্ডের পর যখন আর সামাল দিতে পারে না, তখন তারা নাটক তৈরি করে।

ঘটনা আড়াল করার জন্য সরকার অনুগত প্রচারমাধ্যমকে ব্যবহার করে বিভ্রা’ন্তিকর অপ’প্রচার চালায়। হ’ত্যার শি’কার হতভা’গ্যের পিতামাতা বা স্বজনদের গণভবনে ডেকে নিয়ে সান্ত্বনার নামে প্রহ’সনের নাটক তৈরি করা হয়- এমনটাই দাবী করেন বিএনপির এই নেতা।

ভারতের সঙ্গে চুক্তি ও বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদকে হ’ত্যার প্রতিবাদ এবং বিএনপি চেয়ারপারসন কারাব’ন্দি খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে এ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী হ’ত্যাকারীকে সর্বোচ্চ শা’স্তির গ্যারান্টি দেন বটে, কিন্তু নিহত ব্যক্তির নামে অপ’প্রচার চালাতে থাকেন। যেমন আবরার ফাহাদ হ’ত্যাকে শিবিরের কর্মী সন্দেহে হ’ত্যা হিসেবে চালানো হচ্ছে। একইভাবে শহীদ আবরার ফাহাদ হ’ত্যাকাণ্ডের পর গড়ে ওঠা আন্দোলনকে স্তি’মিত করার জন্য তার পিতামাতাকে ডেকে নেয়া হয় গণভবনে।

‘সেখানে প্রধানমন্ত্রী আবরার ফাহাদ হ’ত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শা’স্তি নিশ্চিত করার আশ্বাস দেন। জনগণ নিশ্চয়ই ভুলে যায়নি যে, ইতিপূর্বে ইলিয়াস আলীর স্ত্রী-সন্তানদেরও গণভবনে ডেকে নিয়ে সান্তনা দেয়া হয়েছিল। তাকে উদ্ধার এবং জড়িতদের বিরু’দ্ধে কঠোর শা’স্তির আশ্বাস দেয়া হয়েছিল। কিন্তু আজও ইলিয়াস আলীর পরিবার তার সন্ধান পায়নি।’

তিনি বলেন, সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনির মা-বাবাও গণভবনের আশ্বাস পেয়েছিলেন। বিশ্বজিতের মা-বাবা, নুসরাতের মা-বাবা, তনুর বাবাকেও গণভবনে ডেকে নিয়ে বিচারের গ্যারান্টি ও সান্ত্বনা দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এসব মামলার কী পরিণতি হয়েছে দেশবাসী তা জানেন।

রিজভী বলেন, জনগণ এই গণভবনের নাম পরিবর্তন করে ‘সান্ত্বনা ভবন’ নামে ডাকতে শুরু করেছেন।

ডাক্তারের ‘স্যরি’ শব্দটি যেমন রোগীর স্বজনের কাছে চরম ভ’য়ঙ্কর, গণভবনের ‘সান্ত্বনা’ শব্দটিও স্বজনহারাদের কাছে তেমনই ভ’য়ঙ্কর! সান্ত্বনার নামে গণভবনের এই প্রহ’সন যেন দেশবাসীকে আর দেখতে না হয়।

শেয়ার করুন !
  • 181
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply