ড. ইউনূসকে ৭ নভেম্বরের মধ্যে সারেন্ডারের নির্দেশ

0

সময় এখন ডেস্ক:

নির্বি’ঘ্নে আদালতে এসে আত্ম’সমর্পণ করতে হাইকোর্ট থেকে সময় পেয়েছেন ৩ মামলার আসামি নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস।

বিমানবন্দরে এসে কোনো প্রকার হয়রা’নি ছাড়া যাতে নির্বি’ঘ্নে আদালতে এসে আত্ম’সমর্পণ করতে পারেন সেজন্য আগামী ৭ নভেম্বর পর্যন্ত সময় দেয়া হয়েছে তাকে।

ওই সময়ের মধ্যে তাকে গ্রেপ্তার বা হয়রা’নি না করার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে দেশে এসে ৭ নভেম্বরের মধ্যে সুবিধাজনক সময়ে তাকে নিম্ন আদালতে আত্ম’সমর্পণ করতে বলা হয়েছে।

সোমবার ড. ইউনূসের ভাই ড. মুহাম্মদ ইব্রাহিমের করা এক রিট আবেদনের শুনানি শেষে বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে ইউনূসের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সাইফুদ্দিন খালেদ।

এর আগে হাইকোর্টের আরেকটি বেঞ্চ ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত ড. ইউনূসকে গ্রেপ্তার না করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন।

ড. ইউনূসের ভাই মুহাম্মদ ইব্রাহিম রিট আবেদনটি করেন।

গত ৯ অক্টোবর ৩ মামলায় তার বিরু’দ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকার ৩য় শ্রম আদালতের চেয়ারম্যান রহিবুল ইসলাম। ড. ইউনূসের প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সের চাকরি’চ্যুত সাবেক ৩ কর্মচারীর করা পৃথক ৩টি মামলায় এ পরোয়ানা জারি করা হয়।

ওই দিন ৩ মামলায় সমনের জবাব দেয়ার জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু ড. ইউনূস আদালতে উপস্থিত না হওয়ায় তার বিরু’দ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

মামলার অপর ২ আসামি হলেন- প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজনীন সুলতানা ও উপ-মহাব্যবস্থাপক খন্দকার আবু আবেদীন।

ড. ইউনূসের আইনজীবী রাজু আহম্মেদ ওই দিন আদালতকে বলেন, ড. ইউনূস সম্মানিত ব্যক্তি। তিনি ব্যবসার কাজে বিদেশে অবস্থান করছেন। তিনি দেশে এলে আদালতে উপস্থিত হবেন।

মামলার বাদী প্রস্তাবিত গ্রামীণ কমিউনিকেশন্স শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবদুস সালাম বলেন, প্রতিষ্ঠানে ইউনিয়ন গঠন করায় চাকরি’চ্যুত হওয়ায় আমরা ড. ইউনূসের বিরু’দ্ধে মামলা করি। তিনি আজ (বুধবার) আদালতে উপস্থিত না হওয়ায় আদালত তার বিরু’দ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

অপরদিকে মামলার ২ আসামি গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজনীন সুলতানা ও উপ-মহাব্যবস্থাপক খন্দকার আবু আবেদীন আত্ম’সমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত তাদের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন।

গত ৩ জুলাই ঢাকার ৩য় শ্রম আদালতে ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ ৩ জনের বিরু’দ্ধে মামলা করেন গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সের সদ্য চাকরি’চ্যুত সাবেক ৩ কর্মচারী। আদালত ৮ অক্টোবর তাদের হাজির হওয়ার জন্য সমন জারি করেন।

শেয়ার করুন !
  • 418
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!