রোহিঙ্গা বিষয়ে মিয়ানমারের মিথ্যাচারের কড়া জবাব দিল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

0

সময় এখন ডেস্ক:

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা কেন স্বেচ্ছায় ফিরতে আগ্রহী হচ্ছে না, তার সঠিক কারণগুলো সমাধানে মিয়ানমারকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ।

বুধবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কড়া বিবৃতিতে বলা হয়, রোহিঙ্গা সং’কট নিয়ে মিথ্যাচার বন্ধ করে মিয়ানমার সরকারকে তাদের প্রতিশ্রুতি পূরণে মনোযোগী হতে হবে।

মিয়ানমারের আন্তর্জাতিক সহযোগিতাবিষয়ক মন্ত্রী উ কিয়াও তিনের সাম্প্রতিক মন্তব্যের পরি’প্রেক্ষিতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এ বিবৃতি এসেছে।

সাম্প্রতিক ন্যাম সম্মেলনে উ কিয়াও তিন অভিযোগ করেন, ধর্মীয় নিপী’ড়ন, জাতিগত নি’র্মূল অভিযান ও গণহ’ত্যার মতো শব্দ ব্যবহার করে রোহিঙ্গা সং’কটের বিষয়টিকে বাংলাদেশ ভিন্নভাবে চিত্রায়িত করছে।

রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব ব’ঞ্চিত করার কারণ হিসেবে মিয়ানমার ওই জনগোষ্ঠীকে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া অ’বৈধ অভিবাসী আখ্যায়িত করে থাকে। এবার তারা নতুন এক তত্ত্ব নিয়ে হাজির হয়েছে। দেশটি বলছে, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যু’দ্ধের সময় বিপুলসংখ্যক মানুষ বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে মিয়ানমারে গিয়েছিল।

মিয়ানমারের এ ধরনের দাবিকে পুরোপুরি ভিত্তিহীন বলেছে বাংলাদেশ। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এসব ভিত্তিহীন অভিযোগ, তথ্যবি’কৃতি ও ঘটনাকে ভুলভাবে উপস্থাপন করা ওই বক্তব্যকে বাংলাদেশ প্র’ত্যাখ্যান করছে।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আরসার কোনো তৎ’পরতা নেই বলে মিয়ানমারকে পুনর্ব্যক্ত করেছে বাংলাদেশ সরকার। বিবৃতিতে বলা হয়, নিরাপত্তা বাহিনীর অতি সতর্কতা ও নিবৃ’ত্তিমূলক কার্যকর পদক্ষেপের কারণে বাংলাদেশের কোথাও সন্ত্রা’সীদের ঘাঁটি পরিচালনা সম্ভব না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীন বর্তমান সরকার এ ক্ষেত্রে শূন্যসহনীয় নীতি অবলম্বন করছে বলেও বিবৃতিতে বলা হয়েছে। এতে বলা হয়, যখন রোহিঙ্গদের ফেরত পাঠানো হবে, তখন কোনো ধরনের হুম’কি কিংবা প্রভা’ব ছাড়াই নিজেদের মতামত ব্যক্ত করতে পারবেন তারা।

কাজেই নিজেদের অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা সং’কটে বাংলাদেশকে জড়ানোর চেষ্টা থেকে মিয়ানমারকে বি’রত থাকতে হবে। এ ছাড়া সন্ত্রা’সবাদের বিরু’দ্ধে ল’ড়াইয়ে একটি সমন্বিত সহযোগিতা কলাকৌশলে বাংলাদেশের প্রস্তাবে মিয়ানমারকে ইতিবাচকভাবে সাড়া দিতে হবে।

আলোচনার মাধ্যমে এই দীর্ঘায়িত সমস্যার মোকাবেলার নীতি অবলম্বন করছে বাংলাদেশ সরকার। এছাড়া মিয়ানমারের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রেখে চলছে ঢাকা। কাজেই এই দীর্ঘ সং’কটের জন্য সম্পূর্ণভাবে দায়ী একটি দেশের মিথ্যা অভিযোগ একেবারেই অ-গ্রহণযোগ্য বলে বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, রোহিঙ্গা প্র’ত্যাবাসনে বাংলাদেশের বিরু’দ্ধে প্রায়ই অ-সহযোগিতার অভিযোগ করে মিয়ানমার। এ ধরনের অভিযাগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন এবং দূরভিস’ন্ধিমূলক উদ্দেশ্য থেকেই করা হতে পারে।

শেয়ার করুন !
  • 106
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!