স্বৈ’রাচারের আবর্জনা রাঙ্গাকে মন্ত্রী বানিয়েছেন, এখন বিচার চেয়ে লাভ কী: সেলিম

0

সময় এখন ডেস্ক:

স্বৈ’রাচার এরশাদের আবর্জনাদের আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ হাসিনা মন্ত্রী বানিয়েছেন এমনটি অভিযোগ করে কমিউনিউস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেছেন, শহীদ নূর হোসেনকে নিয়ে মন্তব্য করা জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য মসিউর রহমান রাঙ্গার বিচার চেয়ে কী লাভ?

সেলিম বলেন, এই সরকারের কাছে কোনো সংসদ সদস্যের পদ’ত্যাগ চাওয়ারও সুযোগ নেই। কারণ, আমরা জানি, কোনো ন্যায্য দাবিকে সমর্থন করতে ভয় পায় সরকার।

শহীদ নূর হোসেনকে নিয়ে করা সংসদ সদস্য মসিউর রহমান রাঙ্গা সম্প্রতি যে মন্তব্য করেছেন, তার প্র’তিক্রিয়ায় বামপন্থি এই রাজনৈতিক এসব কথা বলেন। এরশাদবিরো’ধী আন্দোলনে নূর হোসেন যেদিন নিহ’ত হন সেদিন মুজাহিদুল ইসলাম সেলিমও মিছিলে নেতৃত্ব দেন।

সেলিম বলেন, স্বৈ’রাচার এরশাদের প’তনের পর ৩টি জোট একটি ঐক্যমতে পৌঁছেছিলাম যে, আমরা এরশাদের অনুসারী এবং তার দলের সঙ্গে কোনোদিন আপস করব না। ওইদিন যে ঐক্যমত্য করা হয়, তার ড্রাফট লিখেছিলাম আমি নিজে। ওই চুক্তিতে আমি সাক্ষী।

তিনি বলেন, দুঃখজনক হলেও সত্য যে আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি নেতৃত্বাধীন উভয় জোটই জাতির সঙ্গে বিশ্বাসঘা’তকতা করেছেন। তারা এরশাদের সঙ্গে জোট করেছে, যার হাতে নূর হোসেনের রক্ত। অথচ এই রক্তের ওপর ভর করেই খালেদা জিয়া এবং শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসেছেন। আর ক্ষমতায় এসে তারা এরশাদকেই বারবার পুনর্বাসন করেছে।

রাঙ্গার সমালোচনা করে সেলিম বলেন, নূর হোসেনের নাম শুনলে তারা ভয় পায়। আঁ’তকে ওঠে। এ কারণেই রাঙ্গা বেফাঁ’স মন্তব্য করেছেন। রাঙ্গার মতো মানুষ নূর হোসেনকে মূল্যায়ন করার যোগ্যতা রাখে না।

তিনি বলেন, তার পদত্যাগ চাওয়ার সুযোগ আওয়ামী লীগ রাখেনি। এক স্বৈ’রশাসক আরেক স্বৈ’রাচারের আবর্জনাকে আগলে রেখেছে।

অপরাধের কারণে কারো পদ’ত্যাগ চাওয়াও এখন নিরাপদ নয়। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যায়ের উপাচার্যের দুর্নীতি সবার মুখে মুখে। অথচ প্রধানমন্ত্রী অভিযোগকারীদের বিরু’দ্ধে অবস্থান নিয়ে কথা বলছেন। সরকার প্রধান এমন অবস্থান নিলে কে কার পদত্যাগ চাওয়ার সাহস রাখে! যোগ করেন, সেলিম।

গণতন্ত্রের আন্দোলনে শহীদ নূর হোসেনের আত্ম’দানের দিন রোববার যখন তাকে স্মরণ করেছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠন, সেদিনই জাতীয় পার্টির এক অনুষ্ঠানে রাঙ্গার বিত’র্কিত এই বক্তব্য আসে।

উল্লেখ্য, রোববার ঢাকার বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে ‘গণতন্ত্র দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে রাঙ্গা বলেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে ক্ষমতা’চ্যুত করতে ষড়-যন্ত্রমূলকভাবে মা’দকাসক্ত নূর হোসেনকে পেছন থেকে গু’লি করে হ’ত্যা করা হয়েছে।

অ’বৈধভাবে ক্ষমতা দখ’লকারী সামরিক শাসক এইচ এম এরশাদকে হটাতে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও বামসহ দেশের প্রায় সব রাজনৈতিক দল সম্মিলিতভাবে ১৯৮৭ সালে ঢাকা অবরো’ধের কর্মসূচি দিয়েছিল; সেদিন পুলিশের গু’লিতে নিহ’ত হন যুবলীগ কর্মী নূর হোসেন।

শেয়ার করুন !
  • 376
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply