এবার বাংলাদেশের গরুতে নজর তুরস্কের

0

অর্থনীতি ডেস্ক:

বাংলাদেশে ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনার জন্য তুরস্ক নিজস্ব কার্যালয় স্থাপন করতে চায় বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তুরস্ক বলছে, কার্যালয় স্থাপন করে কর্মপরিচালনা করলে বাণিজ্য স্বয়ংক্রিয়ভাবেই অনেকগুণ বেড়ে যাবে। তুরস্কের এ প্রস্তাব বিবেচনা আশ্বাস দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার তুরস্কের আঙ্কারায় দেশটির ভাইস প্রেসিডেন্ট ফুয়াত ওকতের সাথে অর্থমন্ত্রীর সৌজন্য সাক্ষাতে এসব কথা হয়। অর্থমন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

ফুয়াত ও কামালের আলোচনায় বাংলাদেশে উৎপাদিত গরুর বিষয়টিও উঠে আসে। তুরস্কের পক্ষ থেকে বলা হয়, যেহেতু বাংলাদেশ গরু উৎপাদনে সফলতা অর্জন করেছে এবং গুণগত দিক থেকে যে কোনো দেশের তুলনায় উৎকৃষ্ট মানের মাংস উৎপাদন করছে, সেহেতু এগুলোও রপ্তানি বাণিজ্যের আওতায় আনা সম্ভব। এ ক্ষেত্রে হালাল সার্টিফিকেশনের যে প্রয়োজনীয়তা সেক্ষেত্রে তুরস্ক বাংলাদেশকে সহায়তা প্রদান করতে পারে।

এ ছাড়া বাংলাদেশ কৃষি খাত, অ্যাগ্রো প্রসেসিং, পাট ও পাটজাত দ্রব্য, ফ্রুট প্রসেসিং বিশেষ করে আম, লিচু, কাঁঠাল, আনারস প্রসেসিং এর মাধ্যমে বাণিজ্য বাড়াতে পারে এবং সেক্ষেত্রে তুরস্ক সহায়তা করতে পারে বলে উল্লেখ করেন ফুয়াত ওকত।

তুরস্কের সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং বর্তমান প্রেসিডেন্ট এরদোগান ২০১০ সালে বাংলাদেশ সফর করেছিলেন। তখন তুরস্কে বাংলাদেশের রপ্তানি বাণিজ্য ছিল ৪০০ মিলিয়ন। তখন এ বিষয়ে তিনি বলেছিলেন, এটিকে ৩ বিলিয়নে উন্নীত করা হবে। কিন্তু পরবর্তীতে বিভিন্ন কারণে বিশেষ করে, শুল্ক বাধার কারণে বাংলাদেশের রপ্তানি তেমন বাড়েনি, যা বর্তমানে প্রায় ১ বিলিয়ন ডলার। এটাকে কীভাবে ৩ বিলিয়ন ডলার করা যায় সে বিষয়েও আলোচনা হয়।

এ বিষয়ে ফুয়াত বলেন, দ্বিপাক্ষিক ব্যবসা বাণিজ্যের ক্ষেত্রে একে অন্যের প্রতিযোগী না হয়ে ব্যবসা করতে হবে। যেসব দ্রব্য উৎপাদনে তুরস্ক নিজেই ভালো করছে, সেসব দ্রব্য নয় বরং অন্যান্য দ্রব্য এবং যেগুলোর প্রতি তুরস্কের চাহিদা রয়েছে সেই দ্রব্যেগুলো রপ্তানিতে বাংলাদেশ সুযোগ নিয়ে ভালো করতে পারে।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বাংলাদেশের সার্বিক অগ্রগতি তুলে ধরেন এবং পাশাপাশি বাংলাদেশে বিনিয়োগের সুবিধাগুলো তুলে ধরলে তুরস্কের ভাইস প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশের চামড়াজাত দ্রব্যের প্রতি অত্যাধিক আগ্রহ ব্যক্ত করেন।

রোহিঙ্গা সমস্যার বিষয়ে তুলে ধরে কামাল বলেন, পৃথিববীর অন্যতম জনবসতিপূর্ণ একটি ছোট দেশ বাংলাদেশ। এখানে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত বড় হুম’কি; যা বাংলাদেশের সাম্প্রদা’য়িক সম্প্রীতি ও অর্থনৈতিক অগ্রগতিকে ব্যাহত করছে। আর তাই বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের নিজ দেশ মিয়ানমারে প্র’ত্যাবসনের কোনো বিকল্প নেই।

তাই অর্থমন্ত্রী এ সমস্যাটি সমাধানে তুরস্কের সহায়তা কামনা করেন। তুরস্কের ভাইস প্রেসিডেন্ট এ বিষয়ে আরও বেশি আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টি করা হবে বলে আশ্বস্ত করেন।

তিনি বলেন, সমস্যাটি সমাধানের জন্য আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টি করার পাশাপাশি যেহেতু বি’তাড়িত এই অসহায় মানুষগুলো মুসলমান, তাই বিশেষ করে ধনী মুসলিম দেশগুলো ভাগাভাগি করে তাদের আশ্রয় প্রদান করলে সমস্যা অনেকটাই সমাধান হতে পারে।

ভাইস প্রেসিডেন্ট এ বিষয়টি নিয়ে বিশেষভাবে প্রেসিডেন্টের সাথে আলোচনা করবেন বলে জানান।

এ সময় আর উপস্থিত ছিলেন- তুরস্কে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম আল্লামা সিদ্দিকী এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক মো. দাউদ আলী।

শেয়ার করুন !
  • 396
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!