আল-কায়দার বো’মাতঙ্ক: ৩ দিন ধরে ‘বালুর প্যাকেট’ ঘিরে রাখল পুলিশ

0

মেহেরপুর প্রতিনিধি:

৩ দিন ঘিরে রাখার পর অবশেষে পুলিশ জানাল মেহেরপুরের জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের সামনে সার্কিটযুক্ত বো’মাসদৃশ বস্তুটি আসলে বো’মা নয়, এটি বালুর প্যাকেট।

আত’ঙ্ক সৃষ্টির জন্য ওই স্থানে বালুর প্যাকেটটি ফেলে রেখেছিল কেউ। বিষয়টি নজরে এলে গত বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) থেকে এটিকে ঘিরে রাখে পুলিশ।

শনিবার (৭ ডিসেম্বর) দুপুরে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন মেহেরপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) এসএম মুরাদ আলী।

এসপি এসএম মুরাদ আলী বলেন, শনিবার সকালে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখেছে এটি বো’মা নয়, বালুর প্যাকেট। আত’ঙ্ক সৃষ্টির উদ্দেশ্যে কেউ ব্যাগের ভেতর বো’মাসদৃশ বস্তুটি ফেলে রেখেছিল।

তিনি বলেন, লাল স্কচটেপ দিয়ে মুড়িয়ে বো’মাসদৃশ বস্তুটি তৈরি করা হয়। তাতে মোবাইল ব্যাটারি ও ইলেকট্রনিক যন্ত্র দিয়ে এমনভাবে রাখা হয়েছে যে কেউ দেখলে ইলেকট্রনিক্স ডিভাইসযুক্ত বো’মা বলে সন্দেহ করবে। এখনকার ঘটনাটি ছিল এমনই। আত’ঙ্ক সৃষ্টির জন্য এমন কাজ করেছে কেউ।

এসপি এসএম মুরাদ আলী আরও বলেন, মূলত বো’মাসদৃশ বস্তুর সঙ্গে ‘আল কায়দা’ নাম দিয়ে লেখা একটি চিরকুট থাকার কারণে বিষয়টি গুরুত্ব দেয়া হয়। সেজন্য বো’মা বিশেষজ্ঞ দলকে ডাকা হয়। কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট ঘটনাস্থলে আসতে দেরি করায় এটি নি’ষ্ক্রিয় সময় লেগেছে। অবশেষে তারা আমাদের জানিয়েছে এটি বো’মা নয়, বালুর প্যাকেট। আর এখানে ‘আল কায়দার’ কোনো অস্তিত্ব নেই। এরপরও বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখব আমরা। এ ঘটনায় জড়িতদের খুঁজে বের করবে পুলিশ।

গত বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মেহেরপুর জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের কর্মচারীরা গেটের পাশে প্রাচীরের সঙ্গে একটি ব্যাগে বো’মাসদৃশ বস্তু দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেন। পরে পুলিশের একাধিক দল ঘটনাস্থলে এসে ব্যাগের ভেতরে একটি সার্কিটযুক্ত বো’মাসদৃশ বস্তু দেখতে পায়।

তারপর থেকে জায়গাটি ঘিরে রাখে পুলিশ। একই স্থান থেকে আনছারুল ইসলাস (আল কায়দা) নামের একটি সংগঠনের হাতে লেখা চিরকুটও উদ্ধার করা হয়।

শেয়ার করুন !
  • 26
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply