শাড়ি-গয়নার কম্পিটিশনযুক্ত বিদেশি সিরিয়ালের চেয়ে দেশি নাটক উঁচু মানের: প্রধানমন্ত্রী

0

সময় এখন ডেস্ক:

অনেক দেশের সিরিয়ালে (ভারতীয় সিরিয়াল) তো শুধু শাড়ি আর গয়নার কম্পিটিশন আর খুনসুঁটিপানা দেখি। কিন্তু আমাদের প্রতিটি নাটকের ভেতরে অনেক বেশি জীবনবোধের স্পর্শ আছে। এই নাটক থেকে অনেক কিছু জানা যায়, শেখা যায়, অনেক কিছু বোঝা যায়,- এমনটাই জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোববার (৮ ডিসেম্বর) বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে ২০১৭ ও ২০১৮ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী আরও জানান, বিভিন্ন ধরনের দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে ফাইলপত্র পড়তেই সময় সময় চলে যায় বলে চলচ্চিত্র দেখার সময় পান। তাই বিদেশ সফরে যাওয়ার সময় ফ্লাইটে সুযোগ হলে সিনেমা দেখেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের যে মেধা আছে, তাতে আরও সুন্দর সুন্দর চলচ্চিত্র নির্মাণ হতে পারে। এমন সুন্দর চলচ্চিত্র নির্মিত হোক— সেটাই আমি চাই। কিন্তু সময় তো পাই না। ফাইল দেখতে আর নথি পড়তেই দিনটা কেটে যায়। তবে বিদেশে যাই যখন, তখন বিমানে বসে সিনেমা দেখি। আমাদের বাংলা চলচ্চিত্রগুলো খুঁজে খুঁজে দেখি।

সময় পান না বলে টেলিভিশন চ্যানেলের অনুষ্ঠানও খুব একটা দেখার সুযোগ পান না বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। তবে বাংলাদেশের টেলিভিশন নাটকগুলো মানের দিক থেকে এগিয়ে আছে বলে মনে করেন তিনি। এ সময় ভারতীয় টিভি সিরিয়ালের দিকে ইঙ্গিত করেও কিছু কথা বলেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, আমি কাউকে ব’দনাম করতে চাই না। অনেক দেশের সিরিয়ালে (ভারতীয় সিরিয়াল) তো শুধু শাড়ি আর গয়নার কম্পিটিশন আর খুনসুঁ-টিপানা দেখি। কিন্তু আমাদের প্রতিটি নাটকের ভেতরে অনেক বেশি জীবনবোধের স্পর্শ আছে। এই নাটক থেকে অনেক কিছু জানা যায়, শেখা যায়, অনেক কিছু বোঝা যায়।

বঙ্গবন্ধু বিপিএলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের কারণে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, আজ একটু তাড়াহুড়ায় আছি। বিপিএলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আছে, সেখানে যোগ দিতে হবে। ৭টার মধ্যে সেখানে উপস্থিত থাকতেই হবে। এ জন্য একটু তাড়াহুড়া করে পুরস্কারটা দেওয়া হলো। তবে আমি চাই, ভবিষ্যতে এভাবে না করে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানটা আর একটু সুন্দরভাবে যেন উপস্থাপন করা হয়।

তিনি বলেন, যাকে যখন পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে, যে সিনেমার জন্য পাচ্ছেন, তার ট্রেলারটা বা কিছু অংশ দেখানো, কিছুটা বর্ণনা দেওয়া— এ রকম কিছু থাকলে ভালো হবে। তবে আজ যে তাড়াহুড়াটা হলো, এর জন্য আমি নিজেই দায়ী। ভবিষ্যতে আর এটা যেন না হয়, সে বিষয়ে আমরা খেয়াল রাখব।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশি চলচ্চিত্র শিল্পীদের জন্য সবচেয়ে বড় স্বীকৃতি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। গত মাসে ২৭টি ক্যাটাগরিতে ২০১৭ সালের ও ২৮টি ক্যাটাগরিতে ২০১৮ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়। আজ পুরস্কার তুলে দেওয়া হলো বিজয়ীদের হাতে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সাবেক তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, তথ্য প্রতমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন তথ্য সচিব আব্দুল মালেক।

শেয়ার করুন !
  • 169
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!