‘বাপ-চাচারা মুক্তিযু’দ্ধ করেছেন বলেই আজ সচিব হয়েছি’

0

সময় এখন ডেস্ক:

অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মনোয়ার আহমেদ বলেন, ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ রেসকোর্স ময়দানে এক ঐতিহাসিক ভাষণের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ডাক দেন। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাপ-চাচারা মুক্তিযু’দ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছেন বলেই আজ সচিব হয়েছি। বর্তমানে যে সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছি, পাকি আমলে তা কল্পনা করাও সম্ভব হতো না। বঙ্গবন্ধু স্বাধীন দেশ উপহার দিয়েছেন। তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের অর্থনৈতিক মুক্তি দিয়েছেন।

রোববার (২২ ডিসেম্বর) রাজধানীর অদূরে নবাবগঞ্জ উপজেলার আগলা গালিমপুর, কলাকোপ ও কৈলাইল ইউনিয়নের বীর মুক্তিযো’দ্ধাদের সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে সচিব এসব কথা বলেন। আগল প্রগতি সংঘের উদ্যোগে মহাকবি কায়কোবাদ উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় মাঠে এদিন ১০৫ জন মুক্তিযো’দ্ধাকে সম্মাননা দেওয়া হয়।

সচিব বলেন, তরুণ সমাজকে মুক্তিযু’দ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরতে হবে। অনেকে মুক্তিযু’দ্ধের ইতিহাস বি’কৃত করতে পারে। তাই সবাইকে সজাগ থাকতে হবে।

মুক্তিযু’দ্ধে নিজ পরিবারের অবদান তুলে ধরে মনোয়ার আহমেদ বলেন, আমার পিতা মরহুম বদরুদ্দীন আহমদ ওরফে বদু পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সাবেক পরিচালক হিসেবে ঢাকায় কর্মরত ছিলেন। ১৯৮৬ সালে কর্তব্যরত অবস্থায় বাবা মা’রা যান। মুক্তিযু’দ্ধের সময় তিনি পরিবার নিয়ে রামকৃষ্ণ মিশন রোডে থাকতেন। মুক্তিযুদ্ধে’র সময় সরাসরি যু’দ্ধে জড়িত না হলেও চাকরিরত অবস্থায় ঝুঁ’কি নিয়ে প্রতিদিনই সন্ধ্যায় ২/৩ জন প্রতিবেশী নিয়ে ঢাকার মানিক নগরে মুক্তিযো’দ্ধাদের সঙ্গে মিলিত হতেন বাবা।

মুক্তিযু’দ্ধে চাচাদের নানাভাবে সহায়তা করেছেন। নিজের ও প্রতিবেশীদের কাছ থেকে প্রাপ্ত অর্থ এবং অন্যান্য সামগ্রী সংগ্রহ করে মুক্তিযো’দ্ধাদের সঙ্গে মিলিত হতেন। এছাড়াও উচ্চপর্যায়ে চাকরি করতেন বিধায় মুক্তিযো’দ্ধাদের কাছে গোপন সংবাদ পৌঁছে দিতে পারতেন ও দিতেন। দীর্ঘদিন পরে আপনারা আমার পিতাকে স্মরণ করছেন। সন্তান হিসেবে আমি ধন্য।

আমার মেজ চাচা ইপিআর’র সাবেক সুবেদার মেজর বীর মুক্তিযো’দ্ধা রাহাত আলী ২ নম্বর সেক্টরে সক্রিয়ভাবে মুক্তিযু’দ্ধে অংশ নেন। বীর মু্ক্তিযো’দ্ধা ক্যাপ্টেন হালিম চৌধুরী তখন ঢাকা সদর দক্ষিণের কমান্ডার ছিলেন। হালীম চৌধুরীর অধীনে আমার চাচা নবাবগঞ্জ থানার মুক্তিযো’দ্ধাদের কমান্ডার হিসেবে মুক্তিযু’দ্ধে অংশ নেন । তিনি মুক্তিযো’দ্ধাদের সংগঠিত করে এলাকায় প্র’তিরোধ গড়ে তোলাসহ বেশ কয়েকটি অপারেশন পরিচালনা করেন।

আমার সেজ চাচা বীর মুক্তিযো’দ্ধা মরহুম শামসুল আলম ওরফে আ. হামিদ ২ নম্বর সেক্টরে সক্রিয়ভাবে মুক্তিযু’দ্ধে অংশ নেন। হামিদ চাচা পরবর্তীকালে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে আগলা ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন। ছোট চাচা বীর মুক্তিযো’দ্ধা মরহুম আ. মান্নানও ২ নম্বর সেক্টরে সক্রিয়ভাবে মুক্তিযু’দ্ধ করেছেন।

তিনি বলেন, আমার আমার বাপ-চাচাকে সম্মাননা জানানোয় আমি গর্বিত। আপনাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। আমার-বাপ চাচাকে আপনারা বরণ করে নিয়েছেন। সন্তান হিসেবে আমার আর কিছু পাওয়ার নাই। আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞ। কারণ তিনি মুক্তিযো’দ্ধা পরিবারের সন্তানদের সর্বোচ্চ পদে আসীন করেছেন। দেশের সেবা করার সুযোগ করে দিয়েছেন।

বীর মুক্তিযো’দ্ধাদের ঋ’ণ কেউ শোধ করতে পারবে না। আমাদের পরিবারের সন্তানেরা যেন আরও বেশি বেশি করে দেশের সেবা করার সুযোগ পায় এটাই কামনা,’ যোগ করেন তিনি।

সাবেক গণপরিষদ সদস্য বীর মুক্তিযো’দ্ধা আবু মোহাম্মদ সুবিদ আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন পরিকল্পনা কমিশনের শিল্প ও শক্তি বিভাগের সদস্য (সচিব) সাহিন আহমেদ চৌধুরী, আগল প্রগতি সংঘের সভাপতি সফিউদ্দিন আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক রতন সাহা প্রমুখ।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!