ঢাকনা খোলা রেখে কমোড ফ্লাশ করলেই বিপদ!

0

লাইফ স্টাইল ডেস্ক:

মলমূত্র ত্যাগের পর ঢাকনা খোলা রেখেই তাড়াহুড়ো করে অনেকেই ফ্লাশ করে বেরিয়ে আসেন। পরবর্তী কেউ ঢুকলে তার জন্য অপেক্ষা করে থাকে বিপদ‍! কেন জানেন?

কারণ আপনি যখন কামোডে ফ্লাশ করেন তখন তাতে যে তীব্র গতিতে পানি নেমে আসে এর ফলে পায়খানার ছোট ছোট কণা স্প্রে আকারে বাতাসে মিশে গিয়ে ছড়িয়ে পড়তে পারে। বাতাসে মিশ্রিত পায়খানা ১৫ ফুট পর্যন্ত উচ্চতায় উঠতে পারে। সুতরাং আপনি যখনই টয়লেটের কমোড ফ্লাশ করবেন তার আগেই এর ঢাকনাটি নামিয়ে নেবেন।

সম্প্রতি অ্যাপ্লাইড মাইক্রোবায়োলজি নামের একটি আন্তর্জাতিক জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণায় বলা হয়েছে, টয়লেটের কমোডে আপনি যা কিছুই রেখে আসেন না কেন, তা সেখানে ফ্লাশ করার পরও দীর্ঘক্ষণ থাকতে পারে। এমনকি কামোড ঘষে-মেজে ধোয়ার আগ পর্যন্ত সেখানে জীবাণুরা থেকে যায়।

টয়েলেটে বিপজ্জনক কোনো ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটলে তা ওয়াশরুমের মেঝে, সিঙ্ক এবং এমনকি আপনার টুথব্রাশেও ছড়িয়ে পড়তে পারে। কমোড ফ্লাশের সময় পানির তীব্র গতির আঘাতে বাতাসের সঙ্গে স্প্রে আকারে মিশে যাওয়া পায়খানা মুখে প্রবেশ করে স্যালমোনেলা, শিঘেলা, নরোভাইরাস এবং হেপাটাইটিস এ ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটতে পারে আপনার দেহে।

সুতরাং আপনার মুখগহ্বর পরিষ্কার সংক্রান্ত জিনিসপত্র টয়লেটের বাইরের ক্যাবিনেটে সংরক্ষণ করাটাই সবচেয়ে ভালো বুদ্ধি। আর টয়লেট ত্যাগের আগে অবশ্যই প্রতিবার হাত ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করে বের হবেন।

টয়লেটে বংশবিস্তার করে এমন কয়েকটি ক্ষতির জীবাণু হলো- পাকস্থলি ও অন্ত্রের রোগ সংশ্লিষ্ট ভাইরাস, আণবিক প্যাথোজেন, ত্বকের রোগের জীবাণু, শ্বাসনালীর রোগ সংশ্লিষ্ট জীবাণু, ক্ষুদ্র ছত্রাক। এছাড়া E.coli, Pseudomonas aeruginosa, Staphylococus aureus, Enterbacter এর মতো বিপজ্জনক জীবাণুও টয়লেটে জন্ম নেয়।

সুতরাং পাবলিক ওয়াশরুম বা টয়লেট ব্যবহারের সময়ও সাবধান থাকতে হবে। টয়লেটের দরজা কখনোই খালি হাতে ধরবেন না। ভেতর বা বাহির যে কোনো দিক থেকেই দরজা খোলার সময় এর নবটি টিস্যু পেপার দিয়ে ধরবেন।

আর ব্যাগ বা ফোন নিয়ে ওয়াশ রুম বা টয়েলেটে প্রবেশ করবেন না। কারণ সেসবে জীবাণু লেগে পরে তা আপনার দেহে প্রবেশ করবে। সংক্রমণ থেকে রেহাই পেতে ভালো করে হাত ধোয়ার পর তা পেপার টাওয়েল দিয়ে মুছতে হবে।

পশ্চিমা ধাঁচের হাই কমোড থেকে আদি যুগের ফ্ল্যাশবিহীন টয়লেট এ কারণে বেশি নিরাপদ। তবে এসব টয়লেটে পরিষ্কার করার কাজে পানির অপচয় হয় অনেক বেশি, সেই সাথে বয়স্কদের জন্যও অসুবিধাজনক।

শেয়ার করুন !
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.net-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.net আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।

Leave A Reply

error: Content is protected !!